প্রশ্নও উঠছে বাংলাদেশের করোনা টিকা নিয়ে, টিকাকরণের পর মৃত্যু সাংসদের

0

ঢাকা: গোটা বিশ্বকে আতঙ্কিত করে রেখেছে মারণ ভাইরাস করোনা। এই মহামারীর প্রকোপে রয়েছে বাংলা দেশও।এই মারণ ভাইরাসের সঠিক কোনো ওষুধ না পাওয়ায় টিকার উপরেই ভরসা রেখেছেন গবেষকরা। ইতিমধ্যে বিশ্বের বেশ কিছু বড়ো দেশে শুরু হয়ে গেছে টিকাকরণ প্রক্রিয়া। বাংলাদেশেও শুরু হয়েছে টিকাকরণ,কিন্তু টিকা নিয়েও করোনায় প্রাণ হারালেন বাংলাদেশের সাংসদ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েসকে। জানা গেছে বৃহস্পতিবার এক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রাণ হারালেন সাংসদ মাহমুদ উস সামাদ।

তিনি সিলেট ৩ আসনে শাসক দল আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত সংসদ ছিলেন ।এই বিষয় টি নিশ্চিত করেছেন মাহমুদ এর ব্যাক্তিগত সচিব জুলাহাসl গত ৭মার্চ মাহমুদ রাতে সিলেট থেকে ঢাকায় আসেন। সেই সময় তিনি অসুস্থতা বোধ করায় ভর্তি হন এক বেসরকারি হাসপাতালে। এরপরে ৮ ই মার্চ সকালে তাঁর করোনা পরীক্ষা হয় এবং রিপোর্ট আসে পজিটিভ। এরপর থেকে তাঁর শারিরীক অবস্থা আরো অবনতি হতে থাকে এবং তাঁকে ভেন্টিলেশনে দিতে হয়। প্রসঙ্গত মাস খানেক আগেই সাংসদ করোনার টিকা নেন।তার পরেও তাঁর করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটে ফলে খুব স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠছে টিকার কার্যকারিতা নিয়ে।

অপরদিকে টিকা নেওয়ার পরেও সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত হন অভিনেতা, পরিচালক কাজী হায়াত। বর্তমানে তিনি বাড়িতেই আছেন চিকিৎসকের পরামর্শে।গত ২রা মার্চ সপরিবারে টিকা গ্রহণ করেন হায়াত। এই প্রসঙ্গে অভিনেতা হায়াত বলেন “গত ২রা মার্চ টিকা নিয়েছি। এরপর গত ৬ই মার্চ শরীরে হালকা জ্বর অনুভব হয়।৮ই মার্চ করোনা পরীক্ষা করার পর জানতে পারি রিপোর্ট পজিটিভ। উল্লেখ্য গত ২ ৪ঘন্টায় বাংলাদেশে নতুন করে আরও ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনায় এই নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ৮ হাজার ৫০২ জন এছাড়াও নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১০৫১ জন। এই নিয়ে বর্তমানে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাংলাদেশে ৫লক্ষ ৫৪ হাজার ১৫৬ জন। টিকা আবিষ্কারের পরেও করোনা থেকে স্বস্তির খবর এখনও পর্যন্ত তেমন মিলছে না এমনটাই বলছে পরিসংখ্যান।