বাংলাদেশের যশোরেশ্বরী মন্দিরেই কেন প্রধানমন্ত্রী মোদি? উঠছে প্রশ্ন

0

ঢাকা: বাংলাদেশের দক্ষিণের জেলা সাতক্ষীরার প্রত্যন্ত গ্রামের একটি স্বল্প পরিচিত মন্দির হঠাৎ করেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভ্রমণ তালিকায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পবিত্র এই স্থানটি অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর থেকেই পুরো স্পটলাইট যেন এই মন্দিরের উপর।

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ঈশ্বরীপুর গ্রামে অবস্থিত যশোরেশ্বরী কালী মন্দির। সেখানে হিন্দু ধর্মের শক্তির দেবী সতীর দেহাবশেষ পড়েছিল বলে বিশ্বাস করা হয়। জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত ‘ মুজিব বর্ষ’ ও স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপনের জন্য  ২৬ মার্চ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশ সফরে যান। পরের দিন ২৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ার বঙ্গবন্ধু স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাবেন মোদি। সেই সঙ্গে তিনি সাতক্ষীরা ও ওড়াকান্দিতে দুটি মন্দির পরিদর্শন করবেন। তার এই মন্দির পরিদর্শনের দুটি উদ্দেশ্য রয়েছে। তার মধ্যে একটি পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন এবং অপরটি প্রার্থনা। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনের আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী গোপালগঞ্জ জেলার ওড়াকান্দিতে ‘মতুয়া’ সম্প্রদায়ের পবিত্র মন্দিরে যাবেন পশ্চিমবঙ্গে বসবাসরত মতুয়াদের মন জয় করতে।

কিন্তু, যশোরেশ্বরী কালী মন্দিরে কেন যাচ্ছেন তিনি? কারণ হতে পারে, এটি ভক্তদের কাছে ‘শক্তি দেবতা’র মন্দির। সফরের শেষ দিন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ঈশ্বরীপুর গ্রামে গিয়ে এই মন্দিরে পূজা দেবেন। ধারণা করা হয় দ্বাদশ শতাব্দীর শেষের দিকে আনারি নামে একজন ব্রাহ্মণ এই মন্দির নির্মিত করেছিলেন। পুজো শেষ করে দুপুরে ঢাকায় ফেরার পর বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে আনুষ্ঠানিক আলোচনায় মিলিত হবেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী। আজ সন্ধ্যায় মোদী দিল্লির উদ্দেশ্যে ঢাকার ছাড়ার কথা রয়েছে। ওদিকে মোদীর সফরকে কেন্দ্র করে গতকাল ঢাকা, হাটহাজারী ও ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়ায় ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এসব ঘটনায় মোট পাঁচজন মারা গেছে বলে জানা গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here