ফের একবার দেশবাসীর উপর করের বোঝা চাপিয়ে পেট্রোল-ডিজেলের উপর অন্তঃশুল্ক বাড়াচ্ছেন মোদী

0

নয়াদিল্লি: ক্রমশ বেড়ে চলেছে ভারতের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। শনিবার সকাল অবধি সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫৮-এ। দেশের এমন পরিস্থিতিতে কেরল সরকার গরিবদের জন্য ২০ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। বাংলার রাজ্য সরকার বিনামূল্যে চাল প্রদান করবে। শুধু তাই নয়, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইতালির অনেক সরকার তাদের নিজেদের লোকের জন্য বিভিন্ন অর্থনৈতিক সাহায্যের ঘোষণা করেছে।

কিন্তু একমাত্র ভারতের প্রধানমন্ত্রী এই পরিস্থিতির মোকাবিলা করার জন্য অর্থনৈতিক সাহায্য তো দূরের কথা, বরং ‘জনতা কার্ফু’ জারি করতে বলেছেন। কারণ এই মুহূর্তে দেশের অর্থনীতির যা পরিস্থিতি সেদিক থেকে দাঁড়িয়ে তাঁর পক্ষে কোনোরকম অর্থনৈতিক সাহায্য করা সম্ভব নয়। বরং এবার তিনি মানুষকে সাহায্য করার বদলে মানুষের থেকে টাকা আয় করার উপায় বের করলেন। আগে প্ল্যাটফর্ম টিকিট ৫০ টাকা করা হল, এবার লাফিয়ে লাফিয়ে দাম বাড়তে চলেছে পেট্রোলিয়ামজাত দ্রব্যাদির।

ফের একবার কেন্দ্র সরকার পেট্রোল-ডিজেলের উপর অন্তঃশুল্ক বৃদ্ধি করতে চলেছেন। বিশ্ব বাজারে যেখানে দাম কমেছে সেখানে তেলের উপর লিটার প্রতি ২ টাকা বা তারও বেশি কর চাপানো হতে পারে। দু’জন আধিকারিকের মতে, দেশজুড়ে করোনা যে তান্ডব চালাচ্ছে অতিরিক্ত শুল্ক সেই তান্ডবের পর আক্রান্তদের ফান্ড হিসাবে ব্যবহার করা হবে।

ভারতের ক্রুড অয়েল কেনার দাম গত ১৬ মার্চ থেকে কমে ব্যারেল প্রতি ৩০৯ টাকা করে দেওয়া হয়েছে। তবে দেশের খুচরো বিক্রেতারা বিশ্বব্যাপী অপরিশোধিত তেলের দামের ভিত্তিতে রোজকার দাম সংশোধন স্থগিত করেছে। এ বিষয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কর্মকর্তারা বলেছেন, সরকার হস্তক্ষেপ করতে এবং আবারও আবগারি শুল্ক বাড়িয়ে তুলতে পারে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।

যদিও এ নিয়ে কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রক, পেট্রোলিয়াম মন্ত্রক, রাজ্যচালিত তেলের কোম্পানিগুলির তরফ থেকে কোনও উত্তর পাওয়া যায়নি।