সিনেমা হলে নয়, ডিজিট্যাল প্ল্যাটফর্মেই মুক্তি পাবে আলিয়া-সঞ্জয় দত্ত অভিনীত সড়ক-২

0

মুম্বই: বছরের বহুল প্রত্যাশিত ছবি, সড়ক-২, মহেশ ভাটের পরিচালনায় আলিয়া ভাট, আদিত্য রায় কাপুর, পূজা ভাট এবং সঞ্জয় দত্ত অভিনীত ছবিটি ওটিটিতে মুক্তির দিকে যাচ্ছে। করোনা ভাইরাস মহামারীর জন্য প্রেক্ষাগৃহগুলি অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করা ছবি নির্মাতাদের ডিজিটাল মুক্তির দিকে যেতে বাধ্য করেছে। সংবাদসংস্থার সাথে কথা বলে মুকেশ ভাট নিশ্চিত করেছেন, “এটি (কোভিড-১৯ মামলার সংখ্যা) হ্রাসের পরিবর্তে দিন দিন বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে আপনার কি মনে হয় প্রেক্ষাগৃহগুলি চালু হবে? এমনকি যদি তারা চালু করেও সড়ক-২ মুক্তি পায়ও, লোকেরা কি এটি দেখতে যাবে? মানুষকে তাদের পরিবারকে রক্ষা করতে হবে। আজ জীবন আরও গুরুত্বপূর্ণ।”

ছবিটি মূলত ১০ জুলাই বড় পর্দায় মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। নির্মাতাদের ডিজিটাল রিলিজের পথ বেছে নিয়ে ‘বাঁচতে’ হবে, প্রকাশ করলেন প্রযোজক। “আমি আসতে বাধ্য (ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে) কারণ আসন্ন ভবিষ্যতে আমি কোনও আলো দেখতে পাচ্ছি না। বেঁচে থাকার জন্য আমি এটি সবচেয়ে ভালো করতে পারি। কিছু নির্দিষ্ট জিনিস রয়েছে যা আপনি পছন্দ করেন না অথচ বাধ্য হয়ে করেন। এটিই এখন একমাত্র বিকল্প। এটি একটি মস্তিষ্কবিহীন”, এমনটাই জানালেন মুকেশ।

ছবি নির্মাতারা এবং দর্শক উভয়ই বড় পর্দার অভিজ্ঞতাকে পছন্দ করেন এবং ডিজিটাল রিলিজটি ‘অস্থায়ী’ উল্লেখ করে প্রযোজক বলেন, “এখন ছবিগুলি ওটিটিতে প্রকাশ হচ্ছে, এর অর্থ এই নয় যে থিয়েটারগুলি বন্ধ হয়ে যাবে। মানুষের আউটিং দরকার, বড় পর্দার বিনোদন মজাদার। এটি একটি অস্থায়ী পর্ব। আমাদের যুক্তিযুক্তভাবে বুঝতে হবে এবং একে একে বিস্ফোরক বা একে অপরকে নীচে নামানোর মতো কাজ করলে চলবে না। আমাদের একে অপরকে ধরে উপরে তোলা উচিত। আমার কোনও বিকল্প নেই, তাই আমি অবশ্যই ওটিটি বিবেচনা করব। আমরা এই ছবিটিকে বদ্ধ ঘরে রাখতে চাইনি। আমরা এটি মানুষের কাছে আনতে চাই যাতে তারা ছবিটি উপভোগ করে।”

এদিকে, গুলাবো সীতাবোর পরে ডিজিটাল মুক্তির দিকে এগিয়ে যাওয়া অন্যান্য ছবিগুলি হল বিদ্যা বালন অভিনীত শকুন্তলা দেবী, জাহ্নবী কাপুরের গুঞ্জন সাক্সেনা: দ্য কারগিল গার্ল এবং সুশান্ত সিং রাজপুতের দিল বেচারা।

বলা বাহুল্য, সড়ক-২ ১৯৯১ সালে পূজা ভাট ও সঞ্জয় দত্ত অভিনীত সড়ক ছবির সিক্যুয়াল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here