কালীপুজোয় দর্শনার্থীদের জন্য কলকাতার ভেতরেই থাকছে এক টুকরো ভারত

0

কলকাতাঃ এবছর ২৭ তম বর্ষে পা দিল নিমতা সার্বজনীন শ্যামাপুজা কমিটির পুজো। বিগত আট বছর ধরে তারা কালী মায়ের আরাধনায় থিম পুজো করে আসছেন। এবছর তাদের থিম ‘কোলাম’। মূলত দক্ষিণ ভারতের বহুপরিচিত লোকশৈলী কোলামের ওপর ভিত্তি করেই তৈরি হয়েছে তাদের মণ্ডপ। এই লোকশৈলীর সৃষ্টি প্রায় ৫০০০ বছর পূর্বে প্রাচীন বৈদিক যুগে। তারপর এই শৈলীর শৈল্পিক ভাবনা ও নির্দেশনা সর্বাধিক প্রভাব বিস্তার করে দক্ষিণ ভারতে।

কোলামের পাশাপাশি থাকছে ভারতের অন্যান্য প্রদেশের শৈল্পিক নির্দেশনার ছাপ ও বিশ্লেষণও ফুটিয়ে তোলা হয়েছে মণ্ডপে। অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তেলেঙ্গানার ‘মুজ্ঞু’, কর্ণাটকের ‘রাঙ্গোলে’, রাজস্থানের ‘মান্ডানা বা মান্ডাস’, ছত্তিসগড়ের ‘চৌওকপুরানা’, উড়িষ্যার তিনটি শৈলী, যথাক্রমে মুর্জা, ঝোটী এবং চিটা, বিহারের আরিপনা এবং হারিপান, উত্তরপ্রদেশের ‘চৌওকপূজন’, কেরলের পোক্কালাম, মহারাষ্ট্রের সংস্কার ভারতী এবং রঙ্গোলি, গুজরাতের সাথিয়া এবং গাহুলি এছাড়াও উত্তরাখণ্ডের লোকশৈলী ঐপানের সৌন্দর্যের সুস্পষ্ট ছাপ থাকবে মণ্ডপের সামনের সমগ্র রাস্তা জুড়ে। এছাড়া আবহ সঙ্গীতেও থাকছে এই সমস্ত প্রদেশের লোক সংস্কৃতির ছাপ।

মাতৃমূর্তি রাখা হবে এক বিরাট শঙ্খের ভিতরে। সেইসঙ্গে ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের শতবর্ষকে বিশেষ সন্মান জানিয়ে মন্ডপের রঙের বৈচিত্রে থাকছে লাল-হলুদের ছাপ। এখানেই শেষ হয়। কলকাতার বুকে বাঙালিয়ানা ফুটিয়ে তুলতে কোনও ঘাটতি রাখেনি উদ্যোক্তারা৷

বাঙালির পৌষপার্বন-ব্রতকথা থেকে শুরু করে রবীন্দ্রনাথের আধুনিক শান্তিনিকেতনের আলপনাও থাকবে মণ্ডপের যাত্রাপথে। সেইসঙ্গে দক্ষিণের পোঙ্গালের গল্পও বলবে তাদের এই বছরের পুজো মণ্ডপ।