করোনার থাবা লাল বাজারে, আক্রান্ত যুগ্ম পুলিশ কমিশনার

0

অরিত্রা দাশগুপ্ত, কলকাতা: এবার করোনার থাবা খোদ কলকাতা পুলিশের হেডকোয়ার্টার্স লালবাজারের। আক্রান্ত হলেন কলকাতা পুলিশের আইপিএস পদমর্যাদার এক পুলিশকর্তা। বৃহস্পতিবার যুগ্ম পুলিশ কমিশনার(সদর) শুভংকর সিংহ সরকারের কোভিড পজিটিভ ধরা পড়ে। বাড়িতে তিনি হোম আইসোলেশনে রয়েছেন। তাঁর অবর্তমানে যুগ্ম পুলিশ কমিশনার সদর পদের দায়িত্বে রয়েছেন গৌরব শর্মা।

সূত্রের খবর এই প্রথম কলকাতা পুলিশের কোন আইপিএস পদমর্যাদার অফিসার করোনায় আক্রান্ত হলেন। এর আগে রাজ্য পুলিশের দুই আইপিএস অফিসার করোনায় আক্রান্ত হন। লালবাজারের প্রধান বিল্ডিংয়েই যুগ্ম পুলিশ কমিশনারের অফিস। লালবাজারের সেই বাড়িটি স্যানিটাইজ করা হচ্ছে। তিনদিন আগেই তিনি অসুস্থতা অনুভব করেন, তাঁর জ্বর আসে। এরপর সোয়াব পরীক্ষা করলে তাঁর কোভিড রিপোর্ট পজেটিভ আসে। তাঁর সংস্পর্শে যে সমস্ত পুলিশকর্মী অফিসাররা এসেছেন ইতিমধ্যেই তাদের সোয়াব পরীক্ষা করানো হয়েছে। কলকাতা পুলিশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৭০০ পেরিয়েছে। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৩৭০ জন। মোট ২৩ জন পুলিশ কর্মী অফিসার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বৃহস্পতিবার। আবার বৃহস্পতিবারই করোনা কে জয় করে বাড়ি ফিরেছেন ৪১ জন পুলিশ কর্মী।

করোনা মোকাবিলায় লালবাজারে বসানো হয়েছে স্যানিটাইজেশন চ্যানেল। এমনকি কলকাতা পুলিশের থানা ও ট্রাফিক ব্যারাকে পুলিশকর্মীদের থাকতে বারণ করা হয়েছে। যাদের অনেক দূরে বাড়ি তারাই শুধু কয়েকটি থানার ব্যারাকে রয়েছেন। বাকিদের ব্যারাকের বদলে কমিউনিটি হল, বিয়ে বাড়ি এমনকি হোটেলেও থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রত্যেকটি থানার দর্শনার্থীরা বা অভিযোগকারীদের জন্য তৈরি হয়েছে একটি নির্দিষ্ট ভিজিটর হল। প্রত্যেক অভিযোগকারীদের বা থানায় আসা ব্যক্তিদের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা বাধ্যতামূলক। প্রত্যেকের হাত স্যানিটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করে তবেই থানায় প্রবেশের অনুমতি পাওয়া যাবে। থানায় আসা ব্যক্তিদের গাড়ি যেন পুলিশের গাড়ির কাছাকাছি পার্ক না করা হয় সেই বিষয়টিও নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। নাকা চেকিংয়ের সময় প্রত্যেক পুলিশের গ্লাভস ও মাস্ক পড়ে থাকা আবশ্যক করেছে লালবাজার।