কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব অনুমতি দিলেই তৃণমূলের সব পার্টি অফিস ভেঙে গুঁড়িয়ে দেবো: সায়ন্তন বসু

0

কলকাতা : সামনেই ২০২১-এর বিধানসভা ভোট। ভোট যত এগিয়ে আসছে ততই সুর চড়া হচ্ছে বিজেপি নেতাদের। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ নিয়ম করে পুলিশকে আক্রমণ করে চলেছেন। আর তাঁকে অনুসরণ করছেন সায়ন্তনরা। রবিবার দুপুরে দক্ষিণ কলকাতার যাদবপুরে এমনই কিছু ঘটনা ঘটতে দেখা গেল।

এদিন যাদবপুরে দলীয় কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলেন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। সেখান থেকে তিনি হুমকি দেন, “আমাদের কর্মীদের উপরে হামলা চালাচ্ছে তৃণমূল। নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহ, জেপি নাড্ডারা অনুমতি দিলে বাংলায় তৃণমূলের একটা পার্টি অফিসও থাকবে না। সব ভেঙে গুঁড়িয়ে দেব।”

যদিও কেন্দ্রীয় নেতাদের ছাড়পত্র মিললেও রাজ্যে তৃণমূলের পার্টি অফিস ভেঙে দেওয়ার মতো লোকবল আছে কি না, সে প্রশ্ন উঠেছে বিজেপির অন্দরমহলেই। সায়ন্তনের কাছে এই প্রশ্ন করা হলে তাঁর মন্তব্য, “যা বলার যাদবপুরে বলেছি। কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব অনুমতি দিলে কী হবে, সেটা তখনই দেখতে পারবে সবাই।” সায়ন্তনের পাল্টা প্রশ্ন, “যাদবপুরের বিভিন্ন ওয়ার্ডে আমাদের পার্টি অফিস ভেঙে দেওয়া হচ্ছে। কর্মীদের উপর হামলা হচ্ছে। পুলিশ দাঁড়িয়ে দেখছে। তৃণমূলের দুষ্কতীরা তাণ্ডব চালাচ্ছে। এরপরেও চুপ করে থাকব?”এদিকে দিলীপ, সায়ন্তনদের এরকম হুমকি-হুঁশিয়ারি নিয়ে বিজেপির অনেকেই মনে করছেন, বাংলার মানুষ এ ধরনের মন্তব্য ভালোভাবে নেয় না। যদিও সায়ন্তনের দাবি, যে যা ভাষা বোঝে তার সঙ্গে সেই ভাষাতেই কথা বলা উচিত। এই হুঙ্কার রাজনীতিতে আসল কাজটাই আড়ালে চলে যাচ্ছে বলে মনে করছেন রাজ্য বিজেপির এক শীর্ষ নেতা। তাঁর কথায়, “মুকুলদা রাজ্য কমিটির বৈঠকে বলেছিলেন, বুথ শক্তিশালী না হলে ভোটে লড়াই করা যাবে না। বুথ নিয়ন্ত্রণের মুরোদ কারও নেই। শুধু গরম গরম কথা।”

অন্যদিকে সায়ন্তনের এই মন্তব্যে স্বাভাবিকভাবেই উত্তেজনা তৈরি হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। বর্ষীয়ান তৃণমূল নেতা সৌগত রায় বলেন, “আমি তো নরেন্দ্র মোদীদের বলব, অনুমতি দিতে। তা হলেই বোঝা যাবে এ রাজ্যে বিজেপির কত মুরোদ! বসিরহাটে পরাজয়ের পর থেকেই সায়ন্তনবাবু আবোল-তাবোল বকে চলেছেন!” দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “কেন্দ্রীয় নেতাদের সাহায্য ছাড়া যে বাংলার বিজেপি নেতাদের এক পা-ও এগোনোর ক্ষমতা নেই, সেটা আরও একবার প্রমাণ হল।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here