তৃণমূল বা বিজেপি নয়, দু’পক্ষকেই হারাতে হবে, বার্তা সুজন চক্রবর্তীর

0

কলকাতা: যত ভোট এগিয়ে আসছে বিজেপি কাছে চাইছে সিপিএমকে। তাই বিগত সভা গুলিতে বিজেপি নেতাদের সিপিএমের সুনাম গাইতে শোনা যাচ্ছে। আবার তৃণমূল চাইছে বিজেপিকে পর্যুদস্ত করতে সিপিএম সাথে থাকুক। তাই আসন্ন নির্বাচনে সিপিএমের কাঁধে বন্দুক রেখে গুলি চালাতে চাইছে ঘাসফুল ও গেরুয়া শিবির। এবার সেটারই জবাব দিলেন বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী। কটাক্ষ করে তিনি বলেন, দু’পক্ষই এখন বিপদে পড়ে বামেদের ডাকছেন। পাশপাশি তিনি সমস্ত বিতর্ক, বাদানুবাদকে ইতি টেনে তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক ও ধর্মনিরপেক্ষ সব শক্তিকে একজোট হয়ে বিজেপি ও তৃণমূল, দু’পক্ষকেই হারাতে হবে। রবিবার ভাঙড়ের ভোজেরহাটে ডিওয়াইএফআইয়ের লোকাল কমিটির সম্মেলনে তৃণমূল – বিজেপিকে ‘বিজেমূল’ বলে কটাক্ষ করেন। উপস্থিত ছিলেন বিধায়ক ইব্রাহিম আলি, সিপিএমের জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য তুষার ঘোষ-সহ অন্যেরা।

সেখানে সুজনবাবু বলেন, “লড়াইটা এখন কী দাঁড়াচ্ছে? মুকুল রায় বনাম তৃণমূল, নাকি শুভেন্দু অধিকারী বনাম তৃণমূল, নাকি শোভন-বৈশাখী বনাম তৃণমূল? তৃণমূলের নেতারাই রং বদলে এখন বিজেপি। মানুষকে সঙ্গে নিয়ে আমরা এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে চাই।’’ সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুজনবাবুর বক্তব্য, ‘‘তৃণমূলের তাপস রায়, সৌগত রায় বলছেন, বিজেপিকে হারাতে হবে। তাই বামেরা এবং কংগ্রেস আমাদের সমর্থন দিক। অন্য দিকে, শুভেন্দু অধিকারীরা বলছেন, তৃণমূলকে হারাতে হবে। তাই বাম-কংগ্রেস বিজেপিকে সমর্থন দিক। সব থেকে মজার বিষয় হল কিছু দিন আগে পর্যন্ত বলা হত সিপিএমকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তাদেরকে দূরবীনে খুঁজতে হত। এখন বিজেপি, তৃণমূল সবাই সিপিএমকে প্রাসঙ্গিক মনে করছে!’’

যোগ করেন, ‘‘বিজেপি, তৃণমূল বুঝতে পারছে, তারা একা জিতবে না। তাই বলছে, বাকিরা আমাদের সমর্থন দাও। আমরা বলছি, যে তৃণমূলকে হারাতে চাইবে, সে তৃণমূল নেতাদের নিয়ে তৈরি বিজেপিকে জেতাবে কেন? কাল তৃণমূলে যে জিতবে, সে তো বিজেপিতে হাজির হয়ে যাবে। বিজেপি, তৃণমূলকে বাদ দিয়ে সমস্ত শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করে এগোতে হবে।’’ দলের কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশে এ দিন সুজনবাবুর বার্তা, ‘‘মানুষের সঙ্গে নিত্য যোগাযোগ রেখে, মানুষের কাছে গিয়ে সিপিএমকে ঘুরে দাঁড়াতে হবে। আমাদের দলের এত টাকা নেই যে, চ্যানেল কিনে, চ্যানেলের মারফত মানুষের কাছে হাজির হতে হবে। মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করতে হবে।’’