বাম-কংগ্রেস-সিদ্দিকীর জোটের জটিলতা সামান্য কাটলেও চূড়ান্ত হল না আসন রফা

0

কলকাতা: দীর্ঘ আলোচনার পর অবশেষে নিজেদের ঝুলি থেকে কিছু আসন বের করছ আব্বাস সিদ্দিকীর ইন্ডিয়ান সিক্যুলার ফ্রন্টকে দিতে রাজি হয়েছে কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজেদের মধ্যে কথা বলেন বিধান ভবনের তিন শীর্ষনেতা অধীর চৌধুরী, আবদুল মান্নান ও প্রদীপ ভট্টাচার্য। সেই বৈঠকেই কংগ্রেস নিজেদের আটটি আসন ভাইজানদের ছাড়তে রাজি হয়েছে।

প্রসঙ্গত বৃহস্পতিবার বিকেলের বৈঠকে দুই দলের থেকে মোট ৪৫টি আসন দাবি করেছিল আইএসএফ৷ বামেদের থেকে তিরিশিটি এবং কংগ্রেসের কাছে থেকে পনেরোটি আসন চাওয়া হয়। বামেরা তাদের বেশিরভাই আসনই ছাড়তে রাজি হয়েছে। শুধু দু’টি আসন নিয়ে কিছুটা জটিলতা রয়েছে৷ সেগুলি হল কালচিনি এবং বহরমপুর৷ বাম শরিক হিসেবে ওই দুই আসন পাওয়ার কথা ছিল ফরওয়ার্ড ব্লকের৷ সেই দুটি আসনও নতুন দল আইএসএফ’কে দিয়ে দিতে চলেছে বামেরা।

উল্লেখ্য বুধবার রাতের বৈঠকের মাঝপথেই বেরিয়ে যায় কংগ্রেস। তখনই কংগ্রেসের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয় তাদের জেতা আসন কোনওভাবেই ভাইজানকে ছাড়বে না। দক্ষিণবঙ্গের বেশ কিছু আসন দাবি করে আব্বাস সিদ্দিকিরা। কিন্তু কংগ্রেস ছাড়তে রাজি না হওয়ায় জোটের অন্দরে বিতর্ক দানা বাঁধে। এরপর বৃহস্পতিবার ফের বৈঠক হয়। সেখানেই বরফ গলে। জোটের জটিলতা কিছুটা কাটে। তবে, মালদহ, মুর্শিদাবাদ, উত্তর দিনাজপুরের মতো জেলায় এখনও জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

আইএসএফ-এর সঙ্গে জোট করতে বেশি তৎপর ছিল প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বই৷ আইএসএফ-এর সঙ্গে জোটের পক্ষে সওয়াল করে কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গাঁধিকে চিঠিও লিখেছিলেন আব্দুল মান্নান৷ এখন আইএসএফ-এপ আসন রফায় বসে কংগ্রেসই কিছু বিপাকে৷ তবে এখনও পুরোপুরি মসৃণ হয়নি জোটের আসন রফা। প্রথমে বাকি ১০১টি আসনের মধ্যে ৭০ টা আসন চেয়ে বসেছিল আব্বাস সিদ্দিকী। যাতে ঘোর আপত্তি জানায় বাম কংগ্রেস উভয়ই। শেষ পর্যন্ত ৪৫ টা আসন চেয়েছে আব্বাস। শুক্রবার ফের বাম, কংগ্রেস নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনায় বসবে আইএসএফ নেতৃত্ব৷ সেখানেই আসন নিয়ে সব খোলসা করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here