মুখ্যমন্ত্রীর আহত হওয়ার ঘটনায় নবান্নের রিপোর্টে খুশি নয় নির্বাচন কমিশন

0

কলকাতা: নিজের কেন্দ্র নন্দীগ্রামে প্রচারে গিয়ে বিরুলিয়ায় জনসংযোগ মূলক কর্মসূচীর সময় আহত হন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যে ঘটনায় তোলপাড় রাজ্য থেকে জাতীয় রাজনৈতিক মহল। তাও আবার ভোটের ঠিক আগেই এহেন ঘটনা অন্য মাত্রা যোগ করেছে। ওইদিন রাতেই মুখ্যমন্ত্রীকে কলকাতার পিজি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুদিন থাকার পর শুক্রবার সন্ধ্যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হাসপাতাল থেকে ছাড়া হয়। মুখ্যমন্ত্রী নিজেই নাকি নিজের বাড়ি থেকে চিকিৎসা করতে চেয়েছেন। আর এই ঘটনার প্রেক্ষিতে নবান্নের পাঠানো রিপোর্টে সম্পূর্ণ খুশি নয় নির্বাচন কমিশন।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, আক্রমণ নয়, দুর্ঘটনা নবান্নের তরফ থেকে এটাই জানানো হয়েছে রিপোর্টে। নবান্ন সূত্রের খবর তেমনটাই। গত বুধবার মুখ্যমন্ত্রীর আহত হওয়ার পরেই তিনি নিজে জানিয়েছিলেন আচমকাই ৪-৫ জন এসে ধাক্কা মারে তাঁকে। আর তাতেই পায়ে চোট লাগে তাঁর। সঙ্গে সঙ্গে ফুলে যায় পা, চোট লাগে কোমরেও। ঘটনা সামনে আসতেই রাজ্য জুড়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। তৃণমূলের নেতা মন্ত্রিগণ মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমনের বিষয়ে অভিযোগের আঙুল তোলে বিজেপির দিকে, এবং পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে কাঠগড়ায় তোলে নির্বাচন কমিশনকে।

বিজেপি প্রথম থেকেই এই ঘটনা অস্বীকার করে আসছিল, উল্টে সমগ্র ঘটনাকে সাহেব ঘটনা আখ্যা দিয়েছে গেরুয়া শিবির। গত বৃহস্পতিবার হাসপাতালে থাকা কালীন মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন আচমকা ধাক্কা লাগে। কিন্তু তাঁর কর্মী সমর্থকেরা চক্রান্তের অভিযোগ থেকে সরেননি এখনো। গতকালই তৃণমূলের অভিযোগের ভিত্তিতে ৩ পাতার চিঠি পাঠিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ যে তদন্তের দাবি করা হয়েছিল দলের তরফ থেকে, তার জন্য দলের মুখ্যসচিব এবং মেদিনীপুরের জেলাশাসকের থেকে পৃথক ভাবে রিপোর্ট চেয়েছিল কমিশন। কমিশনের কাছে জমা পড়েছে সেই রিপোর্ট।

গতকালই মুখ্যসচিব আলাপন বন্দোপাধ্যায় এবং মেদিনীপুরের জেলা শাসক বিভু গোয়েলে রিপোর্ট পাঠান কমিশনের কাছে। নবান্ন সূত্রের খবর ওই ওই রিপোর্টে মুখ্যমন্ত্রীর সভা এবং কর্মসূচী ঘিরে প্রথম থেকেই জনগণের উপস্থিতি এবং বিপুল সমাগমের কথা লিখা থাকলেও কোথাও চক্রান্ত করে ধাক্কা দেওয়া হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীকে, একথা লেখা হয়নি। জানানো হয়েছে দুর্ঘটনা, আক্রমণ উল্লেখ করেনি। বিরুলিয়ার একটি বাঁকে যাওয়ার সময় পিলারে ধাক্কা লেগে বন্ধ হয়ে যায় গাড়ির দরজা আর তাতেই তীব্র আঘাত পান মুখ্যমন্ত্রী। প্রায় একই তথ্য পাওয়া গেছে জেলাশাসকের রিপোর্ট থেকেও।

সূত্রের খবর জেলাশাসকের রিপোর্টেও কোনো আক্রমণ এবং ধাক্কা ধাক্কির কথা বলা হয়নি। তবে নবান্নের রিপোর্টে খুশি নন নির্বাচন কমিশন। পূর্ণাঙ্গ তদন্তের জন্য আরো বিস্তৃত বিবরণ চায়। সেই কারণেই আজ, শনিবারের মধ্যেই মুখ্যসচিবকে সম্পূর্ণ রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন