বিজেপিকে সমর্থন জানিয়েই নিখোঁজ এনসিপি বিধায়ক

0

মুম্বই: বিজেপির সরকারকে সমর্থন জানিয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রী এবং উপমুখ্যমন্ত্রীর শপরথেও হাজির ছিলেন। তারপর থেকেই আর পাত্তা পাওয়া যাচ্ছে না এনসিপি বিধায়কের। যা নিয়ে মহারাষ্ট্রে শুরু হয়েছে নয়া জল্পনা।

নিখোঁজ হয়ে যাওয়া ওই বিধায়কের নাম দৌলত দারোদা। বিধানসভা নির্বাচনে শাহাপুর কেন্দ্র থেকে লড়াই করেছিলেন তিনি। এনসিপির টিকিটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেও শনিবার সমর্থন জানান বিজেপি সরকারকে। রাজভবনে মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীশের শপথের পর থেকেই তিনি বেপাত্তা।

সদ্য নির্বাচিত হওয়া বিধায়কের বেপাত্তা হয়ে যাওয়ার ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক মহলে। এই বিষয়ে পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই রাজ্যের প্রাক্তন বিধায়ক পাণ্ডুরাং বারোরা। শনিবারই থানে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।

 

সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালিয়ে মহারাষ্ট্র বিধানসভার দখল নিয়েছে বিজেপি। শুক্রবার রাত পর্যন্ত স্থির ছিল যে ওই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন শিবসেনা প্রধান উদ্ভব ঠাকরে। কিন্তু শনিবার সকালেই দেখা যায় মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন বিজেপির দেবেন্দ্র ফড়নবীশ।

শুক্রবার বিকেলের দিকে বৈঠকে বসেন তিন(শিবসেনা, কংগ্রেস এবং এনসিপি) শরিকদলের শীর্ষ নেতৃত্ব। সেই বৈঠকেই মুখ্যমন্ত্রিত্বের বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়। সেখানেই শিবসেনা প্রধান উদ্ভব ঠাকরেকে মুখ্যমন্ত্রী করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। বৈঠক থেকে বেরিয়ে এমনই জানিয়েছিলেন এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ার। আগামিকাল তিন দলের নেতারা জোটের পক্ষ থেকে সাংবাদিক সম্মেলন করবেন। সেই সময়েই রাজ্যপালের কাছে যাওয়ার বিষয়ে জোটের সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করা হবে বলে জানান শরদ পাওয়ার।

কিন্তু শনিবার সকালে বদলে যায় চিত্রটা। এনসিপি দলের বিধায়ক ভাঙিয়ে সরকার গড়ে ফেলে বিজেপি। এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ারের ভাইপো অজিতের নেতৃত্বে আট বিধায়ক যোগ দেয় বিজেপি শিবিরে। দেবেন্দ্র ফড়নবীশের সরকারের উপমুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন অজিত পাওয়ার। যদিও শরদ পাওয়ার দাবি করেছেন যে তিনি বিজেপির সঙ্গে নেই।