প্রধানমন্ত্রীর লকডাউনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে অযোধ্যা গিয়ে বিরোধীদের তোপের মুখে পড়লেন যোগী

0

লখনউ: দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বেড়েই চলেছে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সারা দেশে ২১ দিনের লকডাউন জারি করার কথা ঘোষণা করেছেন। মোদী এবং কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য দফতর থেকে এই সময়ে প্রত্যেক দেশবাসীকে তাদের বাড়িতে থাকতে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আবেদন করেছেন। তবে তারই দলের প্রবীণ নেতা এবং উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ নিজেই লকডাউনের এই সিদ্ধান্তকে বুড়ো আঙুল দেখালেন।

বুধবার নবরাত্রিরর প্রথম দিন তিনি তাঁর সব লস্করকে নিয়ে অযোধ্যা যান। অযোধ্যা পৌঁছোনোর পরে যোগী আদিত্যনাথ রামলালাকে টিনের শেড থেকে সরে গিয়ে ফাইবার দিয়ে তৈরি অস্থায়ী মন্দিরের কাঠামোয় বসেছিলেন। রাম মন্দিরের নির্মাণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত রামলালা এই মন্দিরে থাকবে। প্রধানমন্ত্রী মোদী লকডাউন ঘোষণা করেছেন এখনও ২৪ ঘন্টাও হয়নি, এরই মধ্যে যোগী অযোধ্যাতে নবরাত্রি অনুষ্ঠানে চলে গেলেন।

যদিও করোনা ভাইরাসের কারণে এই অনুষ্ঠানটি স্থগিত করার কথা ভাবা হচ্ছে, কিন্তু যখন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নিজেই এই অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পৌঁছোলেন তখন অনুষ্ঠান বাতিল করার কোনও প্রশ্নই আসছে না। অযোধ্যাতে দেখা গিয়েছে যে, মুখ্যমন্ত্রী যোগী মন্দিরে অনেক সাধকের উপস্থিতিতে প্রার্থনা করছেন। সেখানে অযোধ্যার ডিএম এবং এসপি সহ রাজ্য সরকারের বিপুল সংখ্যক কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। অযোধ্যা প্রশাসন ২ এপ্রিল পর্যন্ত তীর্থস্থানে প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে। তা সত্ত্বেও কেবল এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় এবং সেখানে ২০-২৫ জন লোক মুখ্যমন্ত্রীর সাথে উপস্থিত ছিলেন।

কংগ্রেস সহ অনেক বিরোধী দলের নেতারা যোগীর এই দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজের বিরুদ্ধে প্রশ্ন তুলেছে। উত্তরপ্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি অজয়​কুমার লাল্লু বলেন, “নবরাত্রি প্রথম দিন। আমারও মায়ের দরবারে দর্শনের জন্য যেতে ইচ্ছা হয়েছে। তবে আমি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কথা মেনেছি। উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ প্রধানমন্ত্রীর কথা শুনতে রাজি নন। আপনি নিজেই যদি জনতার মাঝে ঘুরে বেড়ান, তবে রাজ্যের জনগণ কীভাবে প্রধানমন্ত্রীর কথায় কান দেবে?” যোগীর এই আচরণে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠছে দেশের নেতা-মন্ত্রীরাই যদি নিয়মভঙ্গ করেন তবে সাধারণ মানুষরা কি করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here