লকডাউনেও ২৪ ঘন্টা খোলা থাকবে প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান, আশ্বাস কেজরিওয়ালের

0

নয়াদিল্লি: করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে দেশব্যাপী ২১ দিনের লকডাউন চলাকালীন দিল্লির মুদির দোকানগুলিকে ২৪*৭ পরিষেবা দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হল। এমনটাই জানিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বৈজাল এবং সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সাথে দ্বিতীয় বৈঠক শেষে বৃহস্পতিবার এমনটাই বলেছেন কেজরি।

জরুরি খাদ্যসামগ্রী দুধ, রুটি, ফলমূল এবং শাকসবজি পাওয়া যাবে কিনা সেই নিয়েই আতঙ্কের মধ্যে ছিল দিল্লির বাসিন্দারা। এবার সেই সমস্যাই দূর করলেন কেজরিওয়াল। যদিও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী “সম্পূর্ণ লকডাউন” এর সময়ও মুদি, শাকসবজি ও ওষুধ বিক্রির দোকানগুলিকে খোলা থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। তবে বেশ কয়েকটি দোকান পুলিশের ভয়ে বন্ধ থাকে।

এদিন কেজরিওয়াল বলেন, “প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি পর্যাপ্ত সরবরাহের জন্য আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি। আগামীকাল থেকে আমরা নিশ্চিত করার চেষ্টা করব যারা প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলি সরবরাহ করেন যেমন- মুদির দোকান, সবজির দোকান এবং ফার্মেসী যাতে খোলা থাকে এবং পরিষেবা স্বাভাবিক ভাবেই চলতে থাকে। এই ২১ দিন লকডাউন চলাকালীন, কেউ যাতে ক্ষুধার্ত না হয় তা নিশ্চিত করার জন্য আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করব।”

তিনি আরও বলেন, “এটি একটি কঠিন সময়, আমরা সমস্যা বলব না তা বলছি না, তবে সবার যত্ন নেওয়া নিশ্চিত করার জন্য আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করব, প্রয়োজনীয় সামগ্রীর অভাব হবে না। স্বাস্থ্যসেবা এবং সাংবাদিকতার মতো প্রয়োজনীয় পরিষেবা সরবরাহকারী লোকদের যতক্ষণ না তারা পরিচয়পত্র বহন করে নিজেদের সাথে ততক্ষণ তাদের দায়িত্ব পালন করা বন্ধ করা হবে না।” লকডাউন চলাকালীন যেসব খুচরো বিক্রেতারা এবং অপারেটরগুলি কাজ করার অনুমতি পাবে।

 

 

তাদের মধ্যে অ্যাপ্লিকেশন ভিত্তিক খাদ্য সরবরাহ পরিষেবা জোমাটো এবং সুইগির পাশাপাশি অ্যামাজন, ফ্লিপকার্ট, স্ন্যাপডিল এবং গৃহ পরিচালন পরিষেবা আরবান ক্ল্যাপের মতো অনলাইন সংস্থাও রয়েছে। বিগ বাস্কেট, গ্রোফারস, মিল্কব্যাস্কেট, বিগ বাজার, রিলায়েন্স ফ্রেশ, স্পেন্সারস, মোর রিটেইল লিমিটেড এবং ইজিডে-এর মতো অনলাইন গ্রোসারি বিতরণ সংস্থাগুলিও কাজ করার অনুমতি পাবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। ড: লাল পাথল্যাবস, মেডলাইফ এবং ফার্মএজির মতো সংস্থাগুলি ওষুধ ও চিকিত্সা পরিষেবাগুলি অব্যাহত রাখবে।