১৫ এপ্রিল থেকে স্কুল-কলেজ খুলবে কিনা পরিস্থিতি বুঝে তার সিদ্ধান্ত নেবে সরকার: কেন্দ্র

0

নয়াদিল্লি: রবিবার কেন্দ্রীয় এইচআরডি মন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল ‘নিশঙ্ক’ বলেছেন, দেশের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে ১৪ এপ্রিল স্কুল-কলেজ পুনরায় চালু করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে সরকার।

সংবাদসংস্থা পিটিআইকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে তিনি বলেন যে, শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের নিরাপত্তা সরকারের কাছে সর্বাধিক গুরুত্ব বহন করে এবং ১৪ এপ্রিলের পর স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখার প্রয়োজন হলে শিক্ষার্থীদের যাতে কোনও অ্যাকাডেমিক ক্ষতি না হয় সে বিষয়ে দেখভাল করার জন্য তাঁর মন্ত্রক প্রস্তুত রয়েছে।

“এই মুহূর্তে সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিন। আমরা ১৪ এপ্রিল পরিস্থিতি পর্যালোচনা করব এবং পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে তখন স্কুল-কলেজগুলি আবার চালু করা যেতে পারে কিনা বা আরও অতিরিক্ত সময়ের জন্য বন্ধ রাখতে হবে কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া নেব।” তাঁর মন্ত্রকের লকডাউন পরবর্তী পরিকল্পনা জানতে চাইলে এ কথা বলেন পোখরিয়াল।

তিনি আরও বলেন, “দেশে ৩৪ কোটি শিক্ষার্থী রয়েছে, যা আমেরিকার জনসংখ্যার চেয়েও বেশি। তারা আমাদের বৃহত্তম ধন। শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের নিরাপত্তা সরকারের পক্ষে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ।”

২১ দিনের দেশব্যাপী লকডাউন আগামী ১৪ এপ্রিল শেষ হবে। সরকারের তরফ থেকে এই ইঙ্গিতও দেওয়া হয়েছে যে সম্ভবত এরপরে লকডাউনের সময়সীমা আর বাড়ানো হবে না। তবে লকডাউন ঘোষণার আগেই স্কুল-কলেজের ক্লাসগুলি স্থগিত করা হয়।

“স্বয়মের মতো বিভিন্ন সরকারী প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ইতিমধ্যে অনলাইনে ক্লাস চালু হয়েছে। ১৪ এপ্রিলের পরে স্কুল, কলেজ বন্ধ রাখতে যদি প্রয়োজন হয় তবে শিক্ষার্থীদের যাতে কোনও অ্যাকাডেমিক ক্ষতি না ঘটে তা নিশ্চিত করার জন্য আমরা প্রস্তুত। আমি লকডাউনের সময় স্কুল এবং কলেজগুলি যে কর্ম পরিকল্পনা অনুসরণ করছে তা নিয়মিত পর্যালোচনা করছি। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ার সাথে সাথে লকডাউনটি তোলার পাশাপাশি স্থগিত পরীক্ষা ও মূল্যায়নের জন্যও একটি পরিকল্পনা প্রস্তুত রয়েছে,” এমনটাই নিশঙ্ক বলেন।