“আমরা যদি শৃঙ্খলাপরায়ন হই তবে ঈশ্বর আমাদের সাহায্য করবেন,” দিল্লিতে একগুচ্ছ ছাড় প্রসঙ্গে জানালেন কেজরিওয়াল

0

নয়াদিল্লি: দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল করোনা সঙ্কটের সময় মানুষকে সামাজিক দূরত্বের নিয়মগুলি অনুসরণ এবং শৃঙ্খলা মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন। সোমবার থেকেই শুরু হয়েছে চতুর্থ দফার লকডাউন। চতুর্থ দফার লকদাউনের কর্মসূচীর ঘোষণা করার পরই ট্যুইট করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।

কেজরিওয়াল ট্যুইট করে লিখেছেন, “কিছু অর্থনৈতিক কার্যক্রম আজ থেকে শুরু হচ্ছে। শৃঙ্খলা অনুসরণ করা এবং করোনা নিয়ন্ত্রণ করা আমাদের দায়িত্ব। মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার এবং সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা গুরুত্বপূর্ণ। আপনাদের এবং আপনাদের পরিবারকে সুস্থ রাখতে আমি ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি। আমরা যদি শৃঙ্খলাবদ্ধ থাকি তবে ঈশ্বর আমাদের সাহায্য করবেন।” প্রায় ৫০ দিনেরও অধিক সময় ধরে শুনশান থাকার পর অবশেষে দিল্লির রাস্তায় বাস, অটো চলাচলের অনুমতি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেইসঙ্গে ব্যাবসায়িরা খুলতে পারবেন দোকানও বলেই জানানো হয়েছে।

তবে চতুর্থ দফার লকডাউনে একগুচ্ছ ছাড় দিলেও সংক্রমণ এড়াতে কিছু নিয়ম বেধেই দেওয়া হচ্ছে এই ছাড়। অড-ইভেন নিয়ম মেনে দোকান এবং মার্কেট কমপ্লেক্স খোলা হবে সেইসঙ্গে অল্পসংখ্যক যাত্রী নিয়ে চলবে বাস এবং অটো। সোমবার কেজরিওয়াল বলেন, “কন্টেইনমেন্ট জোনের বাইরেই এসকল ছাড় দেওয়া হবে। তবে স্কুল, কলেজ, মেট্রো, সিনেমা হল, শপিং মল এবং সেলুন এখনই খোলা হবে না”।

উল্লেখ্য, ১৭ মে শেষ হয়েছে দেশব্যাপী তৃতীয় দফার লকডাউন। করোনা সংক্রমণ ক্রমশ বাড়তে থাকায় তারপর অর্থাৎ ১৮ মে থেকেই শুরু হয়েছে দেশ তথা রাজ্যজুড়ে চতুর্থ দফার লকডাউন। জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ (এনডিএমএ) ভারত সরকারের মন্ত্রণালয়, রাজ্য সরকার এবং রাজ্য কর্তৃপক্ষের মন্ত্রণালয়-বিভাগসমূহকে ২০২০ সালের ৩১ মে পর্যন্ত লকডাউন অব্যাহত রাখতে বলেছে। কম-বেশী একই রকম থাকছে লকডাউনের নিয়ম-কানুন।