মন্দিরে রাখা যাবে না স্যানিটাইজার, করোনার হাত থেকে বাঁচাবে ঈশ্বর

0

ভোপাল: দীর্ঘ দু’মাসের সম্পূর্ণ লকডাউনের পর শুরু হয়েছে আনলক ১.০। আগামী ৮ জুন থেকে খুলে দেওয়া হচ্ছে সমস্ত ধর্মীয়স্থান। তবে দেবস্থান খুলে দেওয়া হলেও দেশ থেকে বিদায় নেয়নি মারণ ভাইরাস করোনা। তাই ঈশ্বর দর্শন করতে গেলেও সুরক্ষার স্বার্থে মানতে হচ্ছে কিছু বিধিনিষেধ।

ধর্মীয়স্থান গুলিকে স্যানিটাইজ করার পাশাপাশি ভক্তদের জন্য রাখা হচ্ছে সাবান, স্যানিটাইজার। জনসমাগম এড়াতে বেশি পরিমাণে মানুষের প্রবেশ নিষেধ করে দিচ্ছে মন্দির-মসজিদ-গির্জার কর্তৃপক্ষরা। তবে মন্দিরে স্যানিটাইজার রাখা যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন মধ্যপ্রদেশের ভোপালের একটি মন্দিরের পুরোহিত।

কিন্তু করোনার হাত থেকে বাঁচার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জিনিসটিকেই মন্দির থেকে ব্রাত্য কেন করলেন সেই পুরোহিত? এর কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, স্যানিটাইজারে অ্যালকোহল থাকে, যেটি মন্দিরে প্রবেশ করানো নিষেধ। ভোপালের মা বৈষ্ণবধম নব দুর্গা মন্দিরের পুরোহিত চন্দ্রশেখর তিওয়ারির বক্তব্য, “যখন মদ্যপান করলে মন্দিরে প্রবেশাধিকার থাকে না, তাহলে অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজারও মন্দিরে রাখা যাবে না”।

“তাছাড়াও স্নান করে এসেই ভক্তরা মন্দিরে প্রবেশ করেন। সুতরাং, মন্দিরে এসে হাতকে স্যানিটাইজ করার প্রয়োজন নেই”, বলেন তিনি। কিন্তু বাড়ি থেকে মন্দিরে আসা পর্যন্ত এবং সেখানকার বিভিন্ন জায়গায় স্পর্শ করলে সংক্রমণ কি আদৌ এড়ানো সম্ভব? বলা বাহুল্য, ধর্মীয়স্থানে গেলেও মূর্তি, ধর্মগ্রন্থ ইত্যাদিতে স্পর্শ করা যাবে না বলে কড়া নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে ভক্তদের প্রসাদ অথবা পবিত্র জলও দেওয়া যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে কেন্দ্র।