স্বাস্থ্য বিধি মেনেই পুরিতে শুরু হল জগন্নাথ দেবের রথযাত্রা

0

ওড়িশা: সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে পুরিতে শুরু হয়ে গিয়েছে রথ যাত্রা। তবে চলতি বছরে নেই লক্ষাধিক মানুষের ভিড়। পুরির জগন্নাথ দেবের রথযাত্রায় সুপ্রিম কোর্ট স্থগিতাদেশ দিলেও সোমবার তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এসএ বোবদে সোমবার জানান ২৩ মে শর্তসাপেক্ষে পুরীর রথযাত্রা হবে। সেই করোনা মেনে করোনা মহামারীর প্রেক্ষিতে সতর্কতা মেনেই জজন্নাথ দেবে রওনা হচ্ছেন মাসির বাড়ির উদ্দেশ্য।

তিনটি রথে করে করে জগন্নাথ দেব, বলভদ্র ও সুভদ্রা রওনা দেবেন মাসির বাড়ির উদ্দেশ্যে। তবে সেই দৃশ্য চাক্ষুষ দেখতে সাক্ষী থাকবে না অগণিত মানুষ। করোনার করোনা কথ্র নিয়ম মেনেই পালিত হচ্ছে পুরির ঐতিহ্যবাহী রথযাত্রা। রথ টানার সমস্ত প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। মন্দির চত্বরে নিরাপত্তা বজায় রাখতে মতায়েন রয়েছে পুলিশ। চলতি বছরে পুরির রথ টান দেওয়ার সময় সেখানে উপস্থিত থাকবেন শুধুমাত্র মন্দির কমিটির সদস্যরা, পুলিশ এবং মিডিয়া। এরা ছাড়া আর কেউ ভিড় জমানোর অনুমতি পাবে না। সুপ্রিম কোর্ট আগেই জানিয়ে দিয়েছে রথযাত্রাকে কেন্দ্র করে কোনও ভিড় বা জমায়েত চলবে না। স্বাস্থ্য বিধি মেনে তবেই পালন করতে হবে রথযাত্রার অনুষ্ঠান। প্রথমে তিনটি রথে দড়ি পড়িয়ে পরীক্ষা করা হবে তারপর শুরু হবে রথটানের অনুষ্ঠান।

২৩ মে পুরির রথ নিয়ে প্রথম থেকেই অনিশ্চয়তা ছিল। এমনকি সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিয়েছিল চলতি বছরে পুরিতে স্থগিত থাকবে রথযাত্রা। তবে সেই আদেশে পুনঃবিবেচনা দেখার অনুরোধ কেন্দ্রীয় সরকার এবং ওড়িশা সরকার শীর্ষ আদালতে জানায়। সেই রায় সোমবার দিয়েছে শীর্ষ আদালত। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এসএ বোবদে সোমবার জানিয়েছিলেন ২৩ মে শর্তসাপেক্ষে পুরীর রথযাত্রা হবে। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ওড়িশা বিকাশ পরিষদ পুরিতে চলতি বছর যাতে রথ বন্ধ রাখার জন্য অনুরোধ করে জনস্বার্থ একটি মামলা দায়ের করেছিল।

সেই মামলার শুনানিতে শীর্ষ আদালতের প্রধান বিচারপতির এসএ বোবডের নেতৃত্বে একটি এসসি বেঞ্চ জানিয়েছিল চলতি বছরে পুরিতে হবে না জগন্নাথদেবের রথযাত্রা। শীর্ষ আদালতের শুনানিতে বলা হয়েছিল, “আমরা যদি এই বছরের রথযাত্রাকে অনুমতি দিই, তবে ভগবান জগন্নাথ আমাদের ক্ষমা করবেন না। মহামারী চলাকালীন এক জায়গায় এতো লোকের সমাগম একেবারেই উচিত নয়।” তবে প্রধান বিচারপতি এসএ বোবদের নেতৃত্বাধীন তিন বিচারপতির বেঞ্চ ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে দায়ের হওয়ার মামলাটি শুনানিতে জানান, জনগণের স্বার্থ ও সুরক্ষার সঙ্গে কোনও আপোষ করা যাবে না।

পুরির রথ ছাড়া আর কোথাও রথ টানের ক্ষেত্রে অনুমতি দেওয়া হবে না বলেই জানিয়ে দেয় শীর্ষ আদালত। সেই সঙ্গে এক সপ্তাহের বেশী সময় ধরে করা যাবে না কোনও মেলা। করোনায় আক্রান্ত নন সেই সমস্ত মন্দিরের সদস্যরা রথ যাত্রায় অংশ নিতে পারবেন। রাজ্যের গাইডলাইন মেনেই উৎসব পালন মঙ্গলবার  থেকে শুরু করেছে পুরির মন্দির কর্তৃপক্ষ।