এলএসি-তে সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত ভারত, গালওয়ান ভ্যালিতে মোতায়েন টি -৯০ ফায়ারিং ট্যাংক

0

নয়াদিল্লি: ভারত ও চিন দুই পক্ষের তরফ থেকেই আপাতত শান্তির প্রতিশ্রুতি কথা থাকলেও চিনকে কোনও ভাবেই বিশ্বাস করতে চাইছে না ভারত। কারণ চিনা সেনা তাঁদের অবস্থান থেকে সরে যাবে মুখে বললেও কাজে তা করেনি বরং ভারত ও চিনের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় এখনও নিজেদের অবস্থান কায়েম রেখেছে চিন। পাশাপাশি সেই অঞ্চলে চলছে গুরুত্বপূর্ণ নির্মানকাজ। এমনই চাঞ্চল্যকর ছবি উঠে এল স্যাটেলাইটের মাধ্যমে। তাই কোনও ঝুঁকি না নিয়ে ভারত সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত, ভারতীয় সেনাবাহিনী ছয়টি টি -৯০ ফায়ারিং ট্যাঙ্ক এবং সর্বোচ্চ শক্তিশালী কাঁধে চালিত অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক মিসাইল সিস্টেম স্থাপন করেছে গ্যালওয়ান ভ্যালি সেক্টরে।

চিনালিবারেশন আর্মি (পিএলএ) নদীর তীরে তাঁদের সেনা ছাউনি নিয়ে অবস্থান করার পরেই ভারতীয় সেনাবাহিনীর টি -৯০ বিষমা ট্যাঙ্ক মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার পাশে এই সেক্টরে ভারতীয় সেনাবাহিনীও তাঁদের উচ্চতর প্রভাব বিস্তার করে রেখেছে। স্পেনগুর গ্যাপের মাধ্যমে প্রতিপক্ষের যেকোন আক্রমণাত্মক পরিকল্পনা প্রতিহত করতে পূর্ব লাদাখের ১৫৯৭ কিলোমিটার দীর্ঘ এলএসি বরাবর ১৫৫ মিমি হাওইটজার সহ পদাতিক যোদ্ধা যানবাহন মোতায়েন করা হয়েছে। চিনা পিএলএ প্রত্যাহারের অংশ হিসাবে এই সেক্টরে এলএসি নিয়ে একটি চুক্তি করতে চাইছে, ভারতীয় সেনাবাহিনী এক ইঞ্চি মাটিও চিনকে দেওয়ার মতো মানসিকতায় নেই কারণ চিনের ওয়েস্টার্ন থিয়েটার কমান্ড থেকে এলএসি নিয়ে নতুন সংজ্ঞা দেওয়ার অভিপ্রায় নিয়ে চিন আগ্রাসী মনোভাব দেখিয়েছিল।

উল্লেখ্য, স্যাটেলাইট কোম্পানি ম্যাক্সের টেকনোলজি গত ২২ ও ২৩ মের একটি স্যাটেলাইট ছবি সামনে আনে যেখানে দেখা যায় গালওয়ান উপত্যকা সংলগ্ন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় চিন নিজেদের সামরিক নির্মানকাজ জারি রেখেছে। মোট দুই দফায় দুই দেশের সেনাপ্রধানরা আলোচনা করলেও চিনের এমন কীর্তিকলাপ সত্যিই প্রশ্নের মুখে ফেলে দিচ্ছে তাদের ভাবধারাকে। সামরিক কমান্ডারদের মতে, লাল পতাকা আরও উচ্ছতায় উঠলেও চিনকে তার যোগ্য জবাব দিতে প্রস্তুত ভারতীয় সেনাও। ভারতীয় বায়ুসেনার সি-১৭ গ্লোবমাস্টার -৩ এয়ারক্রাফ্ট টি-৯০ ট্যাঙ্ক থেকে যাবতীয় যুদ্ধাস্ত্র ১৬,৬১৪ ফুট উচ্চতায় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার কাছাকাছি পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

পিএলএর প্রচারে পূর্ব লাদাখ সেক্টরে মার্শাল আর্ট প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সেনা প্রবর্তনের কথা বলা হলেও এটা সত্য যে চিনের পাদদেশ সেনারা নূন্যতম দু বছর রয়েছে যেখানে ভারতীয় সেনার অবস্থান দীর্ঘ ১৭ বছর। বলা ভালো যে ১৯৪৮ সাল থেকে, ভারতীয় সেনাবাহিনী পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে সিয়াচেন হিমবাহ দখল থেকে দূরে রাখতে উচ্চ উচ্চতায় যুদ্ধের প্রশিক্ষণ পেয়েছে এবং কারগিল তথা পূর্ব লাদাখ সেক্টরে উভয়ই ১৫,০০০ ফুট উচ্চতায় তাঁদের অবস্থান রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here