MOTN: রাম মন্দির বা সিএএ নয়, মোদী সরকারের সবচেয়ে বড় ‘প্রাপ্তি’ এটি

0

নয়াদিল্লি : মোদী সরকার কেন্দ্রে ক্ষমতায় দ্বিতীয় ইনিংসের এক বছরেরও বেশি সময় অতিক্রম করেছে। এই সময়ে সরকার অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয় যা ঐতিহাসিক বলা যেতে পারে। অনেক ফ্রন্টে, সরকার ব্যাকফুটেও গিয়েছিল এবং তাঁর অনেকগুলি সিদ্ধান্ত সমালোচনারও শিকার হয়েছিল।

মোদী সরকারের এক বছরের প্রাপ্তির বিষয়ে দেশের মেজাজ কী তা জানতে কারভি ইনসাইটস লিমিটেড একটি বড় সমীক্ষা চালিয়েছিল। যার ফলাফল অনুসারে, মোদী সরকারের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি ছিল জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ অপসারণের সিদ্ধান্ত।

রামমন্দির সম্পর্কিত সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তকে লোকেরা মোদী সরকারের দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাপ্তি বলে মনে করে। একই সময়ে, সিএএ, মেক ইন ইন্ডিয়া, আয়ুষ্মান ভারতের মতো সরকারের পদক্ষেপকে মাত্র এক-দুই শতাংশ মানুষ বৃহত্তম প্রাপ্তি হিসাবে বিবেচনা করে। সমীক্ষা অনুসারে, ১৬ শতাংশ লোক বিশ্বাস করে যে জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ সরিয়ে ফেলা মোদী সরকারের সেরা পদক্ষেপ।

আমরা যদি অঞ্চল ভিত্তিক জনগণের মতামতের দিকে নজর রাখি, উত্তর ভারতে ২১ শতাংশ, উত্তর পূর্বে ১৪ শতাংশ, পশ্চিম ভারতে ১৮ শতাংশ এবং দক্ষিণ ভারতে ১১ শতাংশ মানুষ এই পদক্ষেপকে সবচেয়ে বড় অর্জন বলে বর্ণনা করেছেন। রামমন্দিরকে মোদী সরকারের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্জন হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছিল। সমীক্ষায় দেখা গেছে, ১৩ শতাংশ মানুষ মোদী সরকারকে রাম মন্দিরের কৃতিত্ব দিয়েছেন। আমরা যদি আঞ্চলিক ভিত্তিতে জনগণের মতামতের দিকে নজর দিই, তবে উত্তর ভারতে ১১ শতাংশ, উত্তরপূর্বে ১৫ শতাংশ, পশ্চিম ভারতে ১০ শতাংশ এবং দক্ষিণ ভারতে ১৫ শতাংশ মানুষ রামমন্দিরকে মোদী সরকারের সবচেয়ে বড় অর্জন বলে বর্ণনা করেছেন।

দেশের অবকাঠামো শক্তিশালী করতে সরকার প্রচুর চেষ্টা করেছে। সমীক্ষা অনুসারে, ১১ শতাংশ মানুষ বলেছেন যে অবকাঠামো শক্তিশালী করা মোদী সরকারের সবচেয়ে বড় অর্জন। ৯ শতাংশ মানুষ বিশ্বাস করেন যে মোদী সরকার দুর্নীতিমুক্ত ভারত গঠনে সফল হয়েছে এবং এটিই সরকারের সবচেয়ে বড় অর্জন।

সমীক্ষা অনুসারে, ৯ শতাংশ মানুষ বিশ্বাস করেন যে সরকারের প্রচেষ্টার কারণে কালো টাকা কমেছে। এখানে মাত্র ৭ শতাংশ মানুষ বিশ্বাস করেন যে সরকার যেভাবে করোনাকে নিয়ন্ত্রণ করেছিল সেটি সবচেয়ে বড় অর্জন। ৫ শতাংশ লোকের মতে গুডস অ্যান্ড সার্ভিস ট্যাক্স প্রয়োগ করাই মোদী সরকারের সবচেয়ে বড় অর্জন ছিল। ৬ শতাংশ মানুষ কৃষক ও দরিদ্র মানুষের জন্য বাস্তবায়িত সামাজিক প্রকল্পকে সবচেয়ে বড় অর্জন বলে বর্ণনা করেছেন।

মোদী সরকার গত বছর নাগরিকত্ব আইনের মাধ্যমে পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে অমুসলিমদের ভারতের নাগরিকত্ব প্রদানের জন্য একটি আইন কার্যকর করেছিল। সিএএ নিয়ে দেশজুড়ে প্রচুর বিক্ষোভ হয়েছে, কিন্তু মোদী সরকার তাঁর সিদ্ধান্ত থেকে একটুকুও নড়ে বসেনি। যদিও মোদী সরকার এই আইনটিকে তার গুরুত্বপূর্ণ অর্জন বলে অভিহিত করে তবে সমীক্ষার লোকেদের এটির সাথে একমত হতে দেখা যায়নি। কেবল ১ শতাংশ মানুষ সিএএকে মোদী সরকারের সবচেয়ে বড় অর্জন বলে মনে করেন। একইভাবে, মেক ইন ইন্ডিয়াকে মাত্র ২ শতাংশ এবং আয়ুষ্মান ভারত যোজনাকে কেবল ১ শতাংশ বৃহত্তম অর্জন হিসাবে বিবেচনা করে।বলে রাখি, এই সমীক্ষার জন্য ১২ হাজার ২১ জনের সাথে কথা হয়েছিল। এর মধ্যে ৬৭ শতাংশ গ্রামীণ এবং বাকি ৩৩ শতাংশ শহুরে ছিলেন। সমীক্ষায় অন্তর্ভুক্ত ছিল ১৯ টি রাজ্যের মোট ৯৭ টি লোকসভা এবং ১৯৪ টি বিধানসভা। যে ১৯ টি রাজ্যে সমীক্ষা চালানো হয়েছিল সেগুলির মধ্যে অন্ধ্রপ্রদেশ, আসাম, বিহার, ছত্তিশগড়, দিল্লি, গুজরাট, হরিয়ানা, ঝাড়খণ্ড, কর্ণাটক, কেরল, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, ওড়িশা, পাঞ্জাব, রাজস্থান, তামিলনাড়ু, তেলেঙ্গানা, উত্তরপ্রদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। সমীক্ষাটি ১৫ জুলাই থেকে ২৭ জুলাইয়ের মধ্যে করা হয়েছিল।

যদি ধর্মের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা যায় তবে ৮৬ শতাংশ হিন্দু, ৯ শতাংশ মুসলমান এবং অন্যান্য ধর্মের ৫ শতাংশ মানুষ তাদের মতামত দিয়েছিলেন। যাদের উপর সমীক্ষা করা হয়েছিল তাদের মধ্যে ৩০ শতাংশ উচ্চ বর্ণের, ২৫ শতাংশ এসসি-এসটি এবং ৪৪ শতাংশ অন্যান্য পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত মানুষ।