India-China Standoff: ভারত-চীন উত্তেজনার মধ্যেই সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হতে চলেছে দুই কুজবিশিষ্ট উট

0

লেহ : পূর্ব লাদাখের ভারত-চীন সীমান্তে টহলদারির জন্য সেনাদের সাহায্য করতে শীঘ্রই লাদখের বিখ্যাত দুই কুজবিশিষ্ট উটকে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। লেহে ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ডিআরডিও) দুই কুজবিশিষ্ট বা ব্যাকট্রিয়ান উট নিয়ে গবেষণা করেছে, যা পূর্ব লাদাখ অঞ্চলে ১৭ হাজার ফুট উচ্চতায় ১৭০ কেজি অবধি ওজন বহন করতে পারে।

সংবাদসংস্থার সাথে কথা বলতে গিয়ে ডিআরডিও বিজ্ঞানী প্রভু প্রসাদ সারঙ্গি বলেন, “আমরা দুই কুজবিশিষ্ট উটের বিষয়ে গবেষণা করছি। তারা স্থানীয় প্রাণী। আমরা এই উটগুলি সহ্য ক্ষমতা এবং ভার বহন ক্ষমতা নিয়ে গবেষণা করেছি। আমরা পূর্ব লাদাখ অঞ্চলে গবেষণা করেছি। চীন সীমান্তের কাছে ১৭ হাজার ফুট উচ্চতায় দেখা গেছে যে তারা ১৭০ কেজি বোঝা বহন করতে পারে এবং এই ওজন নিয়ে তারা ১২ কিলোমিটার অবধি টহল দিতে পারে।” এছাড়া এই স্থানীয় দুই কুজবিশিষ্ট উটকে এক কুজবিশিষ্ট উটের সাথে তুলনা করা হয়েছিল, যেগুলি রাজস্থান থেকে আনা হয়েছিল। খাদ্য ও জলের অভাবে এই উটগুলি তিন দিন বাঁচতে পারে।

সারঙ্গি বলেন, “এখন ডিফেন্স ইন্সটিটিউট অফ হাই অলটিটিউড রিসার্চ (DIHAR) এই দুই কুজবিশিষ্ট উটের সংখ্যাবৃদ্ধিতে মনোনিবেশ করছে।” তিনি বলেন যে, পরীক্ষা করা হয়েছে এবং শীঘ্রই এই উটগুলিকে সেনাতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। এই প্রাণীর সংখ্যা কম, তবে আমরা যখন ব্রিডিংয়ের পরে সংখ্যায় বাড়াব তখন তা অন্তর্ভুক্ত করা হবে।বলা বাহুল্য, এখনও অবধি ভারতীয় সেনাবাহিনী টহল দেওয়ার সময় এই দুই কুজবিশিষ্ট উট ব্যবহার করেনি। এখনও অবধি সেনাবাহিনী ঐতিহ্যগতভাবে মাঠের খচ্চরগুলি ব্যবহার করা হয়, যার বহন ক্ষমতা প্রায় ৪০ কেজি।

এপ্রিল থেকে ভারত এবং চীনের মধ্যে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণের রেখা বরাবর উত্তেজনা বাড়ে। জুনের মাঝামাঝি গালওয়ান উপত্যকায় উভয়পক্ষের সেনাদের মধ্যে সহিংস সংঘর্ষের পরে পরিস্থিতি আরও উত্তেজনাপূর্ণ হয়ে ওঠে। এই সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা শহিদ হয়, আবার চীনের অনেক সেনাও মারা যায়। একই সময়ে আগস্টের শেষের দিকে এবং সেপ্টেম্বরের গোড়ার দিকে, চীনা সেনাবাহিনী লাদাখে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছিল। একই সঙ্গে, গত এক মাসে সীমান্তে তিনবার গোলাবর্ষণ করা হয়েছে। উত্তেজনা দেখে ভারত লাদাখেও সামরিক শক্তি বাড়িয়েছে।