এবার বিজেপি নেত্রী উমা ভারতীর নিশানায় যোগী: মিডিয়া আর রাজনীতিবিদদেরকে গণধর্ষণের শিকার হওয়া তরুণীর পরিবারের সঙ্গে কেন দেখা করতে দিচ্ছেন না

0

নয়াদিল্লি: উত্তরপ্রদেশের হাথরাসের গণধর্ষণের কেস নিয়ে উত্তাল হয়ে রয়েছে গোটা দেশ। এই জঘন্য ঘটনার জন্য সকলেই যোগী সরকারের দিকে আঙুল তুলছে। সেই সঙ্গে নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের দেখা করতে যেতে না দেওয়া ও মিডিয়াকে প্রবেশ করতে না দেওয়া এবং পুলিশের ভূমিকা আগুনে আরও বেশী করে ঘি ঢালছে। হাথরাসের ঘটনা বিজেপি এবং উত্তরপ্রদেশ সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে বলে উল্লেখ করে খোদ বিজেপির ভাইস-প্রেসিডেন্ট উমা ভারতী উত্তরপ্রদেশ পুলিশের কাজের বিরুদ্ধে গিয়ে আওয়াজ তুলেছেন। সেই সঙ্গে তিনি নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের দেখা করতে দেওয়ার অনুরোধ মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের কাছে করেছেন।

বেশ কয়েকটি ট্যুইট করে যোগী সরকার ও তাঁর পুলিশ প্রশাসনকে তুলোধনা করেছেন উমা ভারতী। তিনি ট্যুইটে লিখেছেন, “আমি অস্থিরভাবে এআইএমএস-এর করোনা ওয়ার্ড হৃঋকেশে রয়েছি। যদি আমি কোভিড পজিটিভ না থাকতাম তবে আমি পরিবারের লোকদের সাথে গ্রামে থাকতাম। আমাকে মুক্ত করে দেওয়া হলে আমি অবশ্যই ক্ষতিগ্রস্থের পরিবারের সদস্যদের সাথে দেখা করব।” তিনি আরেকটি ট্যুইটে লেখেন, “কদিন আগেই আপনি রাম মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন, রামরাজ্য প্রতিষ্ঠার দাবি করলেন। কিন্তু এই ঘটনা আর পুলিশের সন্দেহজনক কার্যকলাপ আপনার ভাবমূর্তিকে ক্ষুণ্ণ করছে।”

বিজেপি নেত্রী হয়েও যোগী সরকারকে আক্রমণ করে উমা ভারতী লিখেছেন, “আমার জ্ঞানে এই রকম কোনও নিয়ম নেই যে, এসআইটির তদন্তের সময় নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যরা কারও সাথে দেখা করতে পারে না, এমনকি এটি পুরো তদন্তই সন্দেহের প্রবল ছায়ায় ফেলবে।” তাই তিনি যোগীকে সমস্ত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। বিজেপি নেত্রী বলছেন, “ও একটা দলিত পরিবারের মেয়ে ছিল। ওকে রাতের অন্ধকারে পুড়িয়ে দেওয়া হল আর এখন ওর পরিবার পুলিশের নজরদারির মধ্যে আছে। যে ভাবে পুলিশ ওদের বন্দি করে রেখেছে, সেটা উদ্বেগজনক আর কোনওভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়।”

হাথরাসের গণধর্ষণের কেস নিয়ে যথেষ্ট চাপে রয়েছে যোগী সরকার। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও এই ঘটনার যথাযথ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। এক প্রকার চাপে পরেই যোগী দ্রুত তদন্তকারী টিম গঠন করেছেন। শুক্রবারে মুখ্যমন্ত্রী হাথরাসের এসপি, ডিএসপি-সহ পাঁচজন পুলিশকর্তাকে সাসপেন্ড করেছেন। অপরাধীদের কঠোর শাস্তির দাবি করছে দেশের মানুষ। অপরাধীদের ফাঁসিতে ঝোলানর কথা বলেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here