চলতি মাসে বিনা প্ররোচনায় ১৮ বার যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান

0

শ্রীনগর: সেনা কর্মকর্তারা শুক্রবার জানিয়েছেন, পাকিস্তানি সেনারা যুদ্ধবিরতি চুক্তির লঙ্ঘন করে শুক্রবার জম্মু ও কাশ্মীরের পুঞ্চ জেলার নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলওসি) বরাবর অঞ্চলে এবং সেনা পোস্টগুলিতে গুলি ও ভারী গোলাগুলি করেছে। বিনা প্ররোচনায় সীমান্তে যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন পাকিস্তানের কাছে নৈমিত্তিক ব্যপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মানকোট সেক্টরে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সদস্যরা পাক সেনার ছোঁড়া গুলির পাল্টা জবাব দিয়েছে। প্রতিরক্ষামন্ত্রকের এক মুখপাত্র বলেছেন, “আজ প্রায় ০৫১৫ ঘন্টার মধ্যে পাকিস্তান সেনাবাহিনী পুঞ্চের জেলার মানকোট সেক্টরে এলওসি-র পাশে ছোট অস্ত্র দিয়ে গুলি চালিয়ে এবং মর্টার গুলি চালিয়ে অঘোষিত যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন শুরু করে।”চিলতি মাসে পাক সেনারা ১৮ বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে। বৃহস্পতিবার রাজৌরী জেলার সুন্দরবানি সেক্টরে পাকিস্তানি গোলাবর্ষণে একজন জুনিয়র কমিশনড অফিসার (জেসিও) আহত হয়েছেন।

প্রসঙ্গত, ১ অক্টোবর, পাকিস্তান সেনাবাহিনী পুঞ্চের কৃষ্ণঘাটি এলাকায় এলওসি বরাবর যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করলে সেনাবাহিনীর এক জওয়ান নিহত হন ও একজন আহত হয়েছিলেন। সেনা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ৫ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানি সেনা ভারী গুলি চালালে এবং সুন্দরবানি সেক্টরে নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছে গোপনে গুলি চালালে সেনাবাহিনীর এক সদস্য নিহত ও একজন অফিসারসহ দুজন আহত হয়েছিলেন। ২ সেপ্টেম্বর, রাজৌরীর কেরি সেক্টরে এলওসি বরাবর পাক সেনার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনে একজন জেসিও নিহত হয়েছিল। ভারত-চীন সীমান্তে উত্তেজনা বর্ধনের মধ্য দিয়ে গত আট মাসে অর্থাৎ ১ জানুয়ারি থেকে ৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণ রেখার নিকটে জম্মু ও কাশ্মীরে মোট পাকিস্তান ৩,১৮৬ বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান। যা ১৭ বছরের ইতিহাসে সর্বোচ্চ।

মর্টার সেল ও গোলা ছোঁড়ার ফলে কাশ্মীর সীমান্তের মানুষদের জীবন, জীবিকা ও কৃষি কার্যক্রম বিপন্ন। প্রতি মুহূর্তে তাঁরা আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। চলতি বছরে এখনও পর্যন্ত বিনা প্ররোচনায় পাক সেনারা সংঘর্ষবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে ১৫০০ বারের বেশী। ২০১৯-এ পাক সেনা গোলাবর্ষণ করেছে ২,৫০০ বার। ২০১৮ সালে সংখ্যাটা ছিল ১,৬২৯ বার। সবচেয়ে কমবার পাকিস্তানের তরফে গোলাবর্ষণ হয়েছে জুন ও জানুয়ারি মাসে। যথাক্রমে ১৮১ ও ২০৩ বার। রিপোর্ট দেখা গিয়েছে, ২০১৯-এর ৫ অগস্ট থেকে দিনে গড়ে ১০ বার করে সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন করছে পাকিস্তান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here