কিষাণ আন্দোলন দুর্বল হচ্ছে, দুটি সংগঠন আন্দোলন থেকে নিজেদের নাম সরিয়ে নিল

0

নয়াদিল্লি: প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন দিল্লিতে কৃষকদের প্রতিবাদ ও তার ফলে সহিংসতার ঘটনায় কৃষকদের আন্দোলন যেন দুর্বল হয়ে পড়েছে। একদিকে সারাদেশে কৃষকদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ রয়েছে, অন্যদিকে কৃষক সংগঠনগুলির মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে। দুটি কৃষক সংগঠন এই আন্দোলন থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছে। অখিল ভারতীয় কিষাণ সংঘর্ষ সমন্বয় কমিটি এবং জাতীয় কিষাণ মজদুর সংগঠনের জাতীয় সভাপতি ভিএম সিং বলছেন যে, তারা এই আন্দোলন থেকে নিজেদেরকে সরিয়ে নিয়েছে। এছাড়াও ভারতের কিষাণ ইউনিয়নও (ভানু গ্রুপ) এই আন্দোলন শেষ করার কথা ঘোষণা করেছে।

গাজীপুর সীমান্তে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে ভিএম সিং বলেছেন যে, প্রজাতন্ত্র দিবসে রাজধানী দিল্লিতে যা ঘটেছে তাও সরকারের দোষ, “যখন কেউ সকাল ১১ টার পরিবর্তে সকাল ৮ টায় চলে যায়, সরকার কী করছিল? সরকার যখন জানত যে কয়েকটি সংস্থা লাল কেল্লায় পতাকা উত্তোলনের জন্য কোটি কোটি টাকা দেওয়ার কথা বলেছিল, তখন সরকার কোথায় ছিল? আমরা এমন কারোর সাথে মিলিত হয়ে কৃষি আইনের বিরোধিতা করতে পারি না যার লক্ষ্য আলাদা। সুতরাং, আমি তাদের শুভ কামনা জানাই। আমি এবং অল ইন্ডিয়া কিষাণ সংঘর্ষ সমন্বয় কমিটি অবিলম্বে এই প্রতিবাদ প্রত্যাহার করছি।”

ভিএম সিং আরও বলেছেন যে, “ভারতের পতাকার মর্যাদা ও গর্ব সকলের। যদি সেই মর্যাদা খর্ব করা হয় তবে সেই লঙ্ঘনকারীর ভুল এবং যারা এই গর্ব ভঙ্গ হওয়ার অনুমতি দিয়েছেন তারাও ভুল। আইটিওর এক সহযোগীও শহীদ হন। যে যে ব্যক্তি কৃষকদের লাল কেল্লায় নিয়ে গিয়েছিল বা যারা কৃষকদের উস্কে দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে পূর্ণ ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।”