আইনের সাথে যুক্ত হয়েও মর্মান্তিক ভাবে নিরীহ কুকুরকে গাড়ি চাপা দিলেন অবসরপ্রাপ্ত সাব-ইনস্পেক্টর

0

বেঙ্গালুরু: রবিবার দক্ষিণ ব্যাঙ্গালুরুতে ঘটে যায় এক মর্মান্তিক ঘটনা। যুগের পরিবর্তনের সাথে সাথে মানুষের মন ও মানসিকতাও আরও বেশি ক্ষীণ হয়ে পড়েছে। এমনই এক ক্ষীণ মানসিকতার উদাহরণ হল বেঙ্গালুরুর এই ঘটনা। কর্ণাটকের একজন অবসরপ্রাপ্ত সাব-ইনস্পেক্টর দক্ষিণ ব্যাঙ্গালুরুতে তার বাড়ির সামনে ঘটান এক মর্মান্তিক ঘটনা। অবসরপ্রাপ্ত সাব-ইনস্পেক্টর গাড়ি চালিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার ধারে শুয়ে ছিল এক বৃদ্ধ কুকুর। তিনি বৃদ্ধ কুকুরটির উপর দিয়ে গাড়ি চালানোর সময় কুকুরটিকে দেখতে পেলও সাহায্যের হাত না বাড়িয়ে উল্টে তার ওপর দিয়েই গাড়ি চালিয়ে চলে যান।

নিকটবর্তী সিসিটিভি ক্যামেরায় ঘটনাটি ধরা পড়ে। উল্লেখ্য ঘটনাটি ঘটার সময় অন্য একটি কুকুর চিৎকার করে উঠেছিল। অবসরপ্রাপ্ত সাব-ইনস্পেক্টর তাতে কোনো ভ্রুক্ষেপ করেননি। অর্থাৎ তিনি যে কুকুরের থেকেও নিম্ন মনের মানুষ তা বোঝা যায় সিসিটিভি ক্যামেরা দেখেই। সূত্রের খবর, গাড়িতে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ ও তার ছেলে ছিলেন। কুকুরটির আর্তনাদ শুনে স্থানীয়রা ছুটে আসে ও চিকিৎসার জন্য তাকে হাসপাতালে নিয়ে যান। বেঙ্গালুরু-ভিত্তিক অ্যাডভোকেসি গ্রুপের সিটিজেনস ফর অ্যানিমাল বার্থ কন্ট্রোল এক বিবৃতিতে বলেছে, ভিডিওতে স্পষ্টভাবে দেখা যাচ্ছে তিনি কুকুরের উপর দিয়েই গাড়িটি চালিয়েছিলেন। কুকুরটি একটি সঙ্কটজনক অবস্থানে রয়েছে এবং তার জীবনের জন্য লড়াই করছে।

পেশাগত অবস্থানের কারণে অবসরপ্রাপ্ত সাব-ইনস্পেক্টর জীবন আইনের কোনও সম্মান না করেই অহংকার ও আধিপত্য দেখিয়েছেন। তিনি এক অর্থে খুন করার চেষ্টা করেছিলেন নিরীহ প্রাণীটিকে। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া এবং বিচারের প্রয়োজন। আহত কুকুরটি বোজো ওয়াগস এলএলপি ভেটেরিনারি হাসপাতাল ও পোষ‍্য পরিষেবাতে চিকিৎসাধীন। চিকিৎসকদের মতে তার অবস্থা এখন খুবই আশঙ্কাজনক। হুলিমাভু থানার অবসরপ্রাপ্ত উপ-পরিদর্শকের বিরুদ্ধে পশুর প্রতি নিষ্ঠুরতার প্রতিরোধ আইন ও ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪২৯ ধারার অধীনে মামলা করা হয়েছে।