ভয়াবহ দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত উত্তরাখণ্ড, চোঙ ব্যবহার করেও মিলছে না মানুষের খোঁজ!

0

দেরাদুন: উত্তরাখণ্ডের অবস্থা এখন শোচনীয়। ক্ষতিগ্রস্ত বহু এলাকা সহ অঞ্চল। চোঙ ব্যবহার করে মানুষের অস্তিত্বের খোঁজ নিচ্ছে TDP, নৌসেনা সহ স্থানীয় পুলিশবাহিনী। তবে অনেক চিৎকার করেও মিলছে না কোনো খোঁজ। মেঘভাঙা বৃষ্টিতে হিমবাহ ভেঙে আছড়ে পড়ে উত্তরাখণ্ডের চামোলি জেলায়। ধ্বংস হয়েছে হৃষিকেশের ১৩.২ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎ প্রকল্প। বরফের স্রোত ভাসিয়ে নিয়েছে সবকিছু। কর্দমাক্ত এলাকায় বিদ্যুৎ প্রকল্পের প্রায় আড়াই কিলোমিটারের টানেল কাদা পাথরে অবরুদ্ধ।
যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে ১৩টি গ্রামের। ভেঙে পড়েছে ৫টি ব্রিজ।

ঘটনাচক্রে নিখোঁজ ১৭০জন। উদ্ধার করা হয়েছে ১৪ জনের মৃতদেহ। তবে টানেলের মধ্যে আরও দেহ আটকে রয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এনডিআরএফএর দল স্নিপার ডগ নিয়ে তদন্ত চালাচ্ছে মৃতদেহের। উল্লেখ্য, হেলিকপ্টার এর মাধ্যমে বিচ্ছিন্ন গ্রামগুলিতে খাবার ও পানীয় জলের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেখান দিয়ে বয়ে গিয়েছে অলকানন্দা ও ধৌলিগঙ্গা নদী সেই জলের স্রোত বেড়ে গিয়ে হুড়মুড়িয়ে এগিয়ে আসে জল-পাথর-বরফ। সংলগ্ন এলাকা ভেঙে গুড়িয়ে নিয়ে যায় তীব্র জলোচ্ছ্বাস।

রেইনি গ্রামে জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের কর্মীরা সেই ভয়ঙ্কর বেগে ছুটে আসা জলের মুখে পড়েন। সেই শ্রমিকদের খোঁজ চলছে। শ্রমিকরা বেঁচে নেই বলেই মনে করছেন অনেকে। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বোরিস জনসন বলেছেন, উত্তরাখণ্ডের এই ভয়াবহ দূর্যোগে ভারতকে সর্বদিক থেকে সহায়তা করতে তারা প্রস্তুত। ঘটনার প্রেক্ষিতে উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াত ঘোষমা করেছেন, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ও মৃত পরিবারের সদস্যদের ক্ষতিপূরণ বাবদ দেওয়া হবে ৪ লক্ষ টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here