“দেশে বেকারত্বের হার ভয়াবহ, দায়ী ২০১৬ সালের অপরিকল্পিত বিমুদ্রাকরণের সিদ্ধান্ত” ফের মোদী সরকারকে আক্রমণ মনমোহনের

0

নয়াদিল্লি: ক্ষমতায় আসার পরে ২০১৬ সালে হঠাত মোদী সরকার ৮ নভেম্বর ঘোষণা করেছেন যে ভারতে বাতিল করা হয়েছে ৫০০ ও হাজার টাকার নোট। সেই ঘটনা নিয়ে বহু আলোচনা সমালোচনা, আক্রমণ ও পাল্টা আক্রমণ হয়েছে। সেই ক্ষত এখনও মোছেনি। নোটবন্দি নিয়ে এখনও মোদী সরকারকে খোঁচা দেয় বিরোধীরা। মোদী সরকারের নোট বন্দির সিদ্ধান্ত নিয়ে আবারও কেন্দ্র সরকারকে আক্রমণ করেছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ও অর্থনীতিবিদ মনমোহন সিং। দেশের অর্থনীতিক অবস্থা ও বেকারত্ব নিয়ে মোদী সরকারকে আবারও দুষলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী।

রাজীব গান্ধী ইনস্টিটিউট অব ডেভলপমেন্ট স্টাডিজের আয়োজিত ‘প্রতীক্ষা ২০৩০’ নামে একটি সম্মেলনের উদ্বোধন করে বলেন, “দেশে বেকারত্বের হার ভয়াবহ। অসংগঠিত ক্ষেত্র ভেঙে পড়েছে। এর জন্য দায়ী ২০১৬ সালের অপরিকল্পিত বিমুদ্রাকরণের সিদ্ধান্ত।” কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দেগে দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ভারতের অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক দর্শনের অন্যতম ভিত্তি হল যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা এবং রাজ্যগুলির সঙ্গে নিয়মিত আলোচনা-পর্যালোচনা। সংবিধানে তেমনটাই বলা হয়েছে। কিন্তু বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার প্রায় কোনও আলোচনাই করে না।”

কেন্দ্রের নোট বাতিল প্রসঙ্গে বলেছেন, “মোদী সরকারের নোটবন্দির সিদ্ধান্ত ,”যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার পরিপন্থী, ক্ষতিকারক।” সেই ঘটনার পর আর করোনার থাবা বসানোর পর দেশে বেকারত্বের হার বেড়েছে বলেই তিনি অভিযোগ করেছেন। জন বেদনা সম্মেলনে তিনি কংগ্রেস কর্মীদের বলেছিলেন “নোট নোটের পদক্ষেপটি বিপর্যয়কর ছিল। এটি দেশকে ধাক্কা দিয়েছে তবে সবচেয়ে খারাপ সময় এখনও আসেনি।”