দেশ জুড়ে অক্সিজেনের আকাল, অপচয় রুখতে নয়া নির্দেশিকা স্বাস্থ্য দফতরের

0

কলকাতাঃ দেশ জুড়ে করোনা সংক্রমণ যত বাড়ছে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অক্সিজেন সিলিন্ডারের চাহিদা। অক্সিজেনের অভাবে প্রান হারাচ্ছেন বহু মানুষ। এই অবস্থায় অক্সিজেনের অপচয় রুখতে নয়া নির্দেশিকা জারি করল স্বাস্থ্য দফতর। কোন পরিস্থিতিতে, কীভাবে, কতক্ষণ অক্সিজেন দিতে হবে, তার একটি রূপরেখা দেওয়া হয়েছে নির্দেশিকায়।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে বেসামাল গোটা দেশ। হাহাকার অক্সিজেনের। মহারাষ্ট্র, দিল্লি-সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে অক্সিজেনের অভাবের কথা উঠে আসছে। এই পরিস্থিতিতে কালো বাজারি রুখতে কড়া সিদ্ধান্ত নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্য দফতর। চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন ছাড়া খোলা বাজারে অক্সিজেন বিক্রি করা যাবে না। ইতিমধ্যেই এই মর্মে নির্দেশিকা জারি করেছে তারা। স্বাস্থ্য দফতর বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, ‘হোম আইসোলেশনে থাকা করোনা আক্রান্তদের অক্সিজেন কিনতে লাগবে রেজিস্টার ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন। প্রেসক্রিপশন ছাড়া অক্সিজেন বিক্রি করতে পারবেন না খুচরো দোকানদাররা। অক্সিজেন বেচতে হবে সর্বোচ্চ খুচরো দামে। প্রেসক্রিপশন ও অনুমতি ছাড়া অক্সিজেনের মজুতদারি, বিক্রি ও স্থানান্তর করলে মহামারি আইন ও ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সূত্রের খবর, এই মুহূর্তে রাজ্যের ১১২টি কোভিড হাসপাতালে অক্সিজেন সরবরাহ করা হচ্ছে পাইপলাইনের মাধ্যমে। আর যে হাসপাতালগুলিতে নতুন করে কোভিড চিকিৎসার পরিকাঠামো গড়ে তোলা হবে, সেখানেও অক্সিজেন পাইপলাইনেই সরবরাহ করা হবে বলে খবর। প্রয়োজনে কয়েকটি হাসপাতালে সিলিন্ডারের মাধ্যমে তা সরবরাহ করা হবে। রাজ্য সরকার জানিয়েছে, যেখানে রাজ্যে প্রতিদিন ২২৩ মেট্রিকটন অক্সিজেনের প্রয়োজন হয়, সেখানে প্রতিদিন রাজ্যে অক্সিজেন উৎপাদনের পরিমাণ ৪৯৭ মেট্রিকটন। ফলে আপাতত অক্সিজেন সংকটের মতো কোনও কথাই উঠতে পারে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here