আজকের দিনে : জাকার্তার রঙ লাল-হলুদ, গর্বের আশিয়ান এল লেসলি ক্লডিয়াস সরণিতে

0

কলকাতা : ২০০৩ সালে ভারতের অধিকাংশ ক্রীড়াপ্রেমী শোকে বিহ্বল। ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে দুরন্ত অস্ট্রেলিয়ার কাছে সৌরভের টিম ইন্ডিয়ার এমন লজ্জার হার যেন মেনে নিতে পারছিল না কেউই। কিন্তু এই ২০০৩ এই দেশকে গর্বিত করেছিল বাংলার আর এক গর্ব, নাম তার ইস্টবেঙ্গল। ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় আজকের দিনেই মূল্যবান আশিয়ান কাপ জিতেছিল ইস্টবেঙ্গল।

সেই সময় দলটি ছিল তারকায় সমৃদ্ধ। দেশীয়দের মধ্যে সন্দীপ নন্দী, দীপক মন্ডল, ষষ্ঠী দুলে, আলভিটো এবং সর্বোপরি, বাইচুং ভুটিয়া। অন্যদিকে বিদেশীদের মধ্যে ছিলেন সুলে মুসা, ডগলাস ডি সিলভা, মাইক ওকোরোর মত দুরন্ত সব খেলোয়াড়। আর বুদ্ধিমত্তায় ভারতীয় ফুটবলের অন্যতম সেরা কোচ সুভাষ ভৌমিকের কোচিংয়ে ইস্টবেঙ্গল ছিল ভারতের অন্যতম সেরা দল।

কিন্তু জাকার্তায় এসেই শুরুতে হোঁচট খায় লাল-হলুদ শিবির। এএফসি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালিস্ট থাইল্যান্ডের বেক তেরো সাসানার কাছে ০-১ এর হার যেন মনোবলে বড় ধাক্কা এনেছিল ইস্টবেঙ্গলের কাছে। ভারতীয় ফুটবলপ্রেমীরাও ধরে নিয়েছিল, খুব বেশি দূর এগোতে পারবে না ইস্টবেঙ্গল। কিন্তু গ্রুপ লিগে ফিলিপিন আর্মিকে ৬-০, কোয়ার্টারে ইন্দোনেশিয়ার পেরসিতা ট্যাঙ্গেরাঙ্গকে ২-১ এবং সেমিফাইনালে পেনাল্টিতে পেত্রোকিমিয়া পুত্রাকে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে ইস্টবেঙ্গল।

এল সেই বহু প্রতীক্ষার ২৬ জুলাই। জাকার্তার গেলোরান সেনাইয়ান স্টেডিয়াম, যেখানে ১৯৬২ সালে ভারত এশিয়ান গেমসে সোনা জিতেছিল, আরও একবার নামল ইতিহাস তৈরি করতে। সামনে সেই অপ্রতিরোধ্য বেক তেরো সাসানা। কিন্তু এবার তৈরি ছিল লাল-হলুদের সৈনিকরা। সুভাষ ভৌমিকের পেপটক এবং লাল-হলুদ মশালের প্রতি দায়িত্বশীলতা যেন খেলোয়াড়দের মনোবলকে সীমাহীন করে তুলেছিল। সেই দিন যেন তারাই এশিয়ার শ্রেষ্ট ক্লাব হয়ে উঠেছিল। মাইক ওকোরো, বাইচুং ভুটিয়া এবং আলভিটো ডি কুনহার গোলে ৩-১ ফলে আশিয়ান কাপ জেতে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব।

আজও বলা চলে, বিদেশের মাটিতে সবচেয়ে সফল দল হিসেবে কার্যত উপরের দিকেই থাকবে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। এশিয়ার ১১টি শক্তিশালী দলের মধ্যে থেকে সেরা হওয়াটা মুখের কথা নয়। আর আন্তর্জাতিক সাফল্য অর্জন করাটা সকলের দ্বারা সম্ভব নয়, তা প্রমাণ করে দিয়েছিল ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। ২০০৩ এর বিশ্বকাপ হারের ব্যথা যেন কিছুটা ভুলিয়ে দিয়েছিল আশিয়ান কাপ জয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here