অনুব্রতের পর এবার অনুপম হাজরা, রবীন্দ্রনাথকে বহিরাগত তকমা দেওয়ায় দুঃখিত বিজেপি নেতা

0

অরিত্রা দাশগুপ্ত, বোলপুর : অনুব্রত মণ্ডলের পর এবার অনুপম হাজরা। “রবীন্দ্রনাথ বহিরাগত” – বিশ্বভারতীর উপাচার্যের এহেন বিতর্কিত মন্তব্যের প্রতিবাদ করলেন বোলপুরের প্রাক্তন সাংসদ বিজেপি নেতা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তনী অনুপম হাজরা। টুইটে তার প্রতিক্রিয়া উপাচার্যের এই মন্তব্যে তিনি অত্যন্ত ব্যথিত অনুভব করেছেন। কারণ তার কাছে রবীন্দ্রনাথ কোন ব্যক্তি নন, আবেগ। পাঁচিল ভাঙচুরের মত বিশৃংখলার ঘটনায় দোষীদের শাস্তির দাবিতে তিনি অনশন করতেও রাজি আছেন।

পৌষ মেলার মাঠে ৮ ফুট পাঁচিল তোলার কাজ ঘিরে রণক্ষেত্র হয় বিশ্বভারতী। কবিগুরুর হাতে তৈরি মুক্ত শিক্ষাঙ্গনে পাঁচিল তোলার একক সিদ্ধান্ত নেওয়ার কারণে উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী বিরুদ্ধে বিক্ষোভে সরব হন পড়ুয়া থেকে প্রাক্তন পড়ুয়া ও স্থানীয় বাসিন্দারা। গত সপ্তাহে উপাচার্য নিজে দাঁড়িয়ে থেকে পাঁচিল তোলার কাজ করালে ও স্থানীয়দের একাংশ এবং ব্যবসায়ী সমিতির লোকজন মিলে পে লোডার দিয়ে সেই নির্মাণ ভেঙে দেয়। সেই প্রসঙ্গে উভয় তরফের বাক যুদ্ধের মাঝে উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী বিতর্কিত মন্তব্য করেন। তাঁর কথায়, ”গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিজে বহিরাগত ছিলেন। তিনি যদি এই অঞ্চল পছন্দ না করতেন বিশ্বভারতী এখানে বিকশিত হতো না।“

এই মন্তব্যে তীব্র নিন্দার ঝড় ওঠে সব মহলে। বোলপুরের প্রাক্তন সাংসদ ও বিশ্বভারতীর প্রাক্তনী হিসেবে ওই মন্তব্যের সমালোচনা করেন অনুপম হাজরা। রবীন্দ্রনাথকে বহিরাগত বলা তার কাছে খুবই অপমানজনক বলে মনে হয়েছে। পাশাপাশি পাঁচিল ভাঙার ঘটনায় বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা তৃণমূলের দুষ্কৃতীদের কাঠ গড়ায় তুলেছেন তিনি দাবি করেছেন দোষীদের শাস্তি না পাওয়া পর্যন্ত তিনি অনশন করতে রাজি আছেন।