“সারা দেশে সব থেকে বেশি রাজনৈতিক খুন হয় এই বাংলায়,” বিজেপি নেতা খুনে মমতাকে আক্রমণ অধীরের

0

কলকাতা: রবিবারে প্রকাশ্যে দুষ্কৃতরা গুলি চালায় বিজেপি নেতা তথা ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং-এর ডান হিসাবে পরিচিত মণীশ শুক্লার উপর। দুষ্কৃতিদের গুলিতের খুন হন বিজেপি নেতা। মণীশ শুক্লার খুনের পর থেকেই বাংলার রাজনীতি উত্তাল। বিজেপি শীর্ষ নেতারা সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। এবার রাজ্যে বিরোধী দলের নেতা খুনের ঘটনার তীব্র নিন্দা করে ট্যুইট করেছেন কংগ্রেস নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী।

কংগ্রেস নেতা ট্যুইট করে লিখেছেন, “বাংলায় রাজনৈতিক খুন বন্ধ হোক, বিরোধী মানে প্রতিপক্ষ, বিরোধী মানে শত্রু নয়। সারা দেশে সব থেকে বেশি রাজনৈতিক খুন হয় এই বাংলায়। পুলিশের থানার সামনে বিজেপি নেতার খুন নিয়ে অনেক প্রশ্ন উঠছে এবং উঠবে। দিদি আপনি চাইলে খুনী ধরা পড়বে, আপনি না চাইলে অ্যারেস্ট হয়তো কেউ হবে কিন্তু প্রকৃত খুনী অ্যারেস্ট হবে না। সি.আই.ডি, পুলিশ কারোর কোনো ক্ষমতা নেই আপনার কথার বাইরে গিয়ে তদন্ত করে। দিদির দালালরা বাজারে নেমে গেছেন ‘হ্যা’-কে ‘না’ করতে। বাংলার পুলিশমন্ত্রী এ বাংলায় রাজনৈতিক খুন ও বিরোধীদের উপর আক্রমণের রাজনীতি বন্ধ হোক। মনে রাখবেন চিরদিন আপনি ক্ষমতায় থাকবেন না। ‘বদলা নয়, বদল চাই’ – বলেছিলেন, ভুলে গেলেন দিদিভাই?? বাংলায় ল এন্ড অর্ডার নেই, যা আছে তা হলো – ডেমোক্রেসির বদলে মমতাক্রেসি, যার আর এক নাম – অটোক্রেসি।”

প্রসঙ্গত, বিজেপি-র ব্যারাকপুর সাংগঠনিক জেলার সদস্য এবং পেশায় আইনজীবী মণীশ শুক্লা রবিবার হাওড়ার এক দলীয় সভায় গিয়েছিলেন। সেখান থেকে ফিরেই টিটাগড় থানার পাশে বিটি রোডের ওপর দলীয় কার্যালয়ে বসেছিলেন। বসে থাকার সময় বাইকে আসা কয়েকজন দুষ্কৃতি তাঁকে লক্ষ করে কয়কটি গুলি চালায়। সেখানেই লুতিয়ে পড়েন বিজেপি নেতা। গুলি লাগে ঘাড় ও মাথায়। রক্তাক্ত অবস্থায় এই জেপি নেতাকে ব্যারাকপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থা খারাপ দেখে পরে সেখান থেকে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় কলকাতায় বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানেই চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। বিজেপি এই ঘটনার সমগ্র দায় তৃণমূলের উপর চাপিয়েছে। মৃত বিজেপি নেতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেছেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়, মুকুল রায় সহ অন্যান্য বিজেপি নেতারা। পাশাপাশি এই ঘটনার উপযুক্ত বিচার পাইয়ে দেওয়ার কথাও বলেছেন মণীশ শুক্লার পরিবারের লোকজনকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here