বিজেপির নবান্ন অভিযানে দেখা মেলেনি অভিমানি রাহুলে, দলবদলের জল্পনা রাজনৈতিক মহলে

0

কলকাতা: গতকাল অর্থাৎ বৃহস্পতিবার বিজেপি নবান্ন অভিযান নিয়ে গোটা শহরই উত্তপ্ত ছিল। বিজেপি নেতাদের মারধোর ও পুলিশের অত্যাচারের অভিযোগ করেছে বিজেপি। তবে এর মধ্যে সব থেকে চোখে লাগার ব্যপার হল বৃহস্পতিবারের নবান্ন অভিযানে সামিল ছিলেন না কেন্দ্রীয় বিজেপিতে সদ্য পদ হারানো নেতা রাহুল সিনহা। সারা দিনের পরিস্থিতি নিয়ে মৌন থাকতেই দেখা গিয়েছে তাঁকে। পদ খয়ানর পর তাঁর এই আচরণ এবার অন্য ইঙ্গিত দিচ্ছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

চারটি জায়গা থেকে বিজেপির মিছিল বের হয়ে নবান্নে যায়। কে কোথাকার মিছিলে নেতৃত্ব দেবে সেই বিষয় আগে থেকেই ঠিক করে দেওয়া হয়েছিল। আশ্চর্যের বিষয় হল সেই নেতৃত্ব দানের তালিকায় নাম ছিল না ৪০ বছর ধরে বিজেপি করা নেতা রাহুল সিনহার। কেন রাহুল সিনহাকে কোনও মিছিলের নেতৃত্ব দেওয়া হয়নি সেই নিয়ে মুখও খোলেননি কোনও বিজেপি নেতা। এটাই জল্পনার পারদ বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে আরও চড়িয়েছে। তবে রাহুল সিনহার ঘনিষ্ঠ অনুগামীদের কাছ থেকে খবর অনুযায়ী জানা গিয়েছে তিনি আগে থেকেই জানিয়ে দিয়েছিলেন যে তিনি এই অভিযানে থাকবেন না।

প্রসঙ্গত, কয়দিন আগেই কেন্দ্রীয় পদে ঘটেছে রদবদল। মুকুল রায়েকে দেওয়া হয়েছে বিজেপির কেন্দ্রীয় সহ সভাপতির পদ। সেই সঙ্গে মুকুল রাহুল সিনহাকে কেন্দ্রীয় সম্পাদকের পদ থেকে সরিয়ে সেখানে মুকুল ঘনিষ্ঠ অনুপম হাজরাকে বসানয় স্বাভাবিক ভাবেই ক্ষুব্ধ হয়েছেন রাহুল। এই রদ বদলের পর রাহুল সিনহা জানিয়েছিলেন, রাহুল সিনহাকে কেন্দ্রীয় সম্পাদকের পদ থেকে সরিয়ে সেখানে মুকুল ঘনিষ্ঠ অনুপম হাজরাকে বসানোয় স্বাভাবিক ভাবেই ক্ষুব্ধ হয়েছেন রাহুল। তারপর থেকেই বঙ্গ বিজেপির অন্দরে মাথা চাড়া দিয়েছে নতুন পুরানোর দ্বন্দ। বঙ্গ বিজেপির অন্দরে মাথা চাড়া দিয়েছে নতুন পুরানোর দ্বন্দ।

মুকুল রায়, সায়ন্তন বসু রাহুল সিনহাকে বাংলার মুখ বলে ঘা সারানোর চেষ্টা করলেও কাজে আসেনি। বৃহস্পতিবারের নবান্ন বিজেপির যুব মোর্চার নবান্ন অভিযানে অংশ না নেওয়ার ঘটনা ও সেই নিয়ে গোটা বাংলার রাজনীতি যখন উত্তাল হয়েছিল তখন রাহুলের মুখে কুলুপ দেওয়া ঘটনা বলছে অন্য কথা। এমনকি ২১-এর নির্বাচনের আগে রাহুল সিনহার তৃণমূলের যোগদানের সম্ভাবনার কথাও উড়িয়ে দিচ্ছেন না অনেকেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here