তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা ঘোষিত হতেই ‘কান্না’, ‘অভিমান’, ‘ক্ষোভ’ ঘাসফুল শিবির জুড়ে

0

কলকাতা : পূর্ব ঘোষণা মতোই তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা থেকে বাদ পড়ল বেশ কিছু পুরোনো মুখ। যার ফলে হতাশ বর্তমান জনপ্রতিনিধরা। ২০১৬ সালে যারা তৃণমূলকে যে কেন্দ্রগুলিতে জিতিয়েছিল তাদের অনেকেই একুশে প্রার্থী করা হয়নি। তাদের জায়গায় দাঁড় করানো হয়েছে অন্য কাউকে। শুক্রবার পূর্ণাঙ্গ তালিকা ঘোষণা করার পরই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে শুরু হয়েছে ক্ষোভ, বিক্ষোভ।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার সাতগাছিয়ায় চারবারের বিধায়ক তথা প্রাক্তন ডেপুটি স্পিকার সোনালি গুহকে একুশে প্রার্থী করা হয়নি। যার জেরে তিনি কার্যত ভেঙে পড়েছেন। কেঁদেই ভাসিয়েছেন তিনি। কান্নাভেজা গলাতেই তিনি বলেন, ”বহু লড়াই-আন্দোলনে আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে ছিলাম। এবার আমাকে দল টিকিট দিল না। নারী দিবসের আগে দলের থেকে যোগ্য সম্মান পেলাম।”

অন্যদিকে টিকিট না পেয়ে ক্ষুব্ধ ভাঙড়ের তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলামও। পোলেরহাট এলাকায় নিজের পার্টি অফিসেই তিনি ভাঙচুর করেন। রাস্তার সামনে অবরোধ করেন তাঁর অনুগামীরা। এ নিয়ে বেলার পর থেকে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ভাঙড়। একইভাবে ভাঙড়ের প্রাক্তন বিধায়ক আবদুর রেজ্জাক মোল্লা এবং বাসন্তীর বিধায়ক গোবিন্দচন্দ্র নস্কর ক্ষোভ ব্যক্ত করেছেন দলের বিরুদ্ধে।

এবারের বিধানসভা লড়াইয়ে তৃণমূলের (TMC) টিকিট পাননি সিঙ্গুরের বর্তমান বিধায়ক ‘মাস্টারমশাই’ রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যও। তাঁর বদলে এবার সিঙ্গুর থেকে লড়বেন ভূমিপুত্র বেচারাম মান্না। এর জেরে ক্ষুব্ধ রবীন্দ্রনাথের সাফ বক্তব্য, ”মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেও সিঙ্গুরে বেচারামের হয়ে প্রচার করব না।”