হাসপাতাল থেকে ছাড়া হলো মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে

0

কলকাতা: নন্দীগ্রাম ঘটনার আটচল্লিশ ঘন্টার মধ্যেই পিজি হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার সন্ধ্যায় হুইল চেয়ারে চেপে হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে আসতে দেখা যায় মুখ্যমন্ত্রীকে। কথা মতো, আগামী সপ্তাহ থেকেই পুরোদমে ভোটের ময়দানে নামবেন তৃণমূল সুপ্রিমো। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী ভিডিও বার্তায় জানিয়েছিলেন, প্রয়োজন পড়লে হুইল চেয়ারে চেপেই ভোটের প্রচারে নামবেন তিনি। ইতিমধ্যেই গ্রামে গঞ্জে স্লোগান উঠতে শুরু করেছে, ভাঙা পায়েই খেলা হবে। যা দলীয় কর্মীদের নতুন করে উজ্জীবিত করেছে। সেইমতো মুখ্যমন্ত্রীর জন্য স্বনিয়ন্ত্রিত হুইল চেয়ারও আনানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার রাত থেকেই মুখ্যমন্ত্রীর অবস্থার উন্নতি হতে থাকে। শোনা যাচ্ছিল, শুক্রবারই মুখ্যমন্ত্রীকে ছেড়ে দেওয়া হতে পারে। সেক্ষেত্রে ডাক্তারের কড়া পরামর্শে মেনে চলতে হবে মুখ্যমন্ত্রীকে। হাসপাতাল সূত্রে খবর মুখ্যমন্ত্রী নিজেই নাকি বাড়ি থেকে চিকিৎসা করাতে চেয়েছেন। সেই মোতাবেক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণের পর ৬ জন চিকিৎসককে নিয়ে গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডও এ বিষয়ে সম্মতি দিয়েছে। তবে বাড়িতে গেলেও চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে থাকবেন তিনি। বাড়ি ফেরার পরে মমতাকে কী কী সাবধানতা। মুখ্যমন্ত্রীর জন্য স্বনিয়ন্ত্রিত হুইল চেয়ারও আনানো হয়েছে। ব্যাবস্থা করা হয়েছে হাওয়াই চপ্পল তৈরি হয়েছে। তবে বাড়ি গেলেও মুখ্যমন্ত্রীকে কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। সেইমতো ডাক্তার কিছু নির্দেশিকা জারি করেছে।

এদিন এসএসকেএমের মেডিক্যাল বুলেটিনে বলা হয়, চিকিৎসায় সাড়া দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। অবস্থার উন্নতি হয়েছে। নতুন করে প্লাস্টার করা হয়েছে। পায়ের ফোলাভাব অনেকটা কমেছে। চিকিৎসকরা আরও ৪৮ ঘণ্টা রাখতে চেয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রী বারবার বলায় ছুটি দেওয়া হচ্ছে। সাতদিন পর ফের তাঁর পরীক্ষা করা হবে। আপাতত বেশ কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে তাঁকে। হুইলচেয়ার ব্যবহার করতে হবে।