‘দিদি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন’, পুরুলিয়ার সভা থেকেই মমতার জন্য আরোগ্য কামনা মোদীর

0

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ একুশের নির্বাচনে বিজেপির পাখির চোখ বাংলা। নিজেদের গদি দখলের লড়াইয়ে কোমর বেঁধে নেমে পড়েছে রাজনৈতিক দলগুলি। জোরকদমে চলছে প্রচারপর্ব। প্রচারের উদ্দেশ্যেই এবার পুরুলিয়ায় হাজির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভাঙড়া মোড়ের সভা থেকে পুরুলিয়ার শহিদ পরিবারের সদস্যদের সম্মান জানান প্রধানমন্ত্রী। বাংলা ভাষায় উপস্থিত জনতাকে সম্বোধনও করেন তিনি।
এদিনের জনসভা থেকে উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে মোদী বলেন, ” পুরুলিয়ার মাটি রাম-সীতার বনবাসের সাক্ষী। বনবাসের সময় সীতা যখন তৃষ্ণার্ত ছিলেন, শ্রীরাম মাটিতে বাণ মেরে জলের ধারা এনেছিল। এর থেকেই বোঝা যায় পুরুলিয়ায় জলের অবস্থা কত ভাল ছিল। এখন পুরুলিয়ায় মারাত্মক জলকষ্ট। ৮ বছরে জলপ্রকল্পের কাজ শেষ করতে পারেনি। আমজনতার এতটাই জলকষ্ট যে তাঁরা ঠিকমতো চাষ করতে পারেন না। পানীয় জলের জন্য মহিলাদের অনেক দূরে যেতে হয়। বিজেপি যেখানে যেখানে ক্ষমতায় এসেছে সেখানে হাজার হাজার কিলোমিটার জলের পাইপ লাইন বসেছে। জলের কষ্ট দূর হয়েছে। চাষিরা নিজেদের মতো চাষ করতে পারবে। বাংলায় বিজেপি ক্ষমতায় এলে জলের কষ্ট দূর করবে।
পাশাপাশি কর্মসংস্থান নিয়ে মোদীর বক্তব্য, “আমি দিল্লিতে থেকেও পুরুলিয়ার কষ্ট বুঝি। তাই সেই কষ্ট দূর করার চেষ্টা করছি। আমি জানি কীভাবে তোষণের নামে এখানকার যুবদের অধিকার অন্যদের দিয়ে দেওয়া হয়েছে? রাজ্যের বিভিন্ন এলাকা রেল দিয়ে যুক্ত করা হবে। ২ মে-র পর বিজেপি সরকার গড়লে ডানকুনির ফ্রেট করিডরের কাজ দ্রুত শেষ হবে। সড়কপথেরও উন্নয়ন করবে। কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে। পুরুলিয়ার মানুষকে বাইরে যেতে হবে না।”
বাম ও রাজ্যের শাসকদল গোটা দেশের কাছে পুরুলিয়াকে পিছিয়ে পড়া জেলা হিসেবে তুলে ধরেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তৃণমূল আমলে আরও পিছিয়ে পড়েছে পুরুলিয়া। তৃণমূলকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “দিদিকে নিজের কাজের হিসেব দিতে হবে। বছরের পর বছর ধরে একটা সেতুও তৈরি করতে পারল না তৃণমূল। এখন উন্নয়নের কথা বলছে। তারা তো নিজের খেলাতে ব্যস্ত।” তিনি বলেন,” মা-মাটি-মানুষের সরকারের যদি আদিবাসী, দলিত, পিছিয়ে পড়া শ্রেণির মানুষের প্রতি যদি ভালবাসা থাকত তাহলে এটা করতে পারত না। তৃণমূল মাওবাদিদের জন্য নতুন প্রজন্ম তৈরি করে দিয়েছে।” জনসভা থেকেই জানিয়ে দিলেন, দিদি বলেন খেলা হবে, বিজেপি বলে বিকাশ হবে, চাকরি হবে। অনেক খেলেছেন দিদি এবার খেলা শেষ হবে, বিকাশ শুরু হবে। বাংলার মানুষের চেয়ে দিদির খেলা নিয়ে বেশি চিন্তা।”
মুখ্যমন্ত্রীর সুস্থতা কামনায় তিনি বলেন, দিদিও দেশের আর বাকি পাঁচটা মেয়ের মতোই মেয়ে। তাঁর সম্মান আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই চাই দিদি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন।