ভোট যুদ্ধে হারাতে হবে তৃণমূলকে: লড়াই কঠিন করতে বিজেপির বঙ্গ নির্বাচনী ইস্তাহারে ‘’কাদম্বিনী গঙ্গোপাধ্যায় স্বাস্থ্য কাঠামো তহবিল’’

0

কলকাতা: ভারত তখন ব্রিটিশের অধীনে, ইংরেজদের অত্যাচারের মধ্যেও এবং হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে সপাটে জবাব দেওয়া সাহসী বঙ্গ সন্তান কাদম্বিনী গঙ্গোপাধ্যায় ,যিনি তৎকালীন পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে রীতিমতো লড়াই করে পাশ্চাত্য চিকিৎসা বিদ্যায় পাশ করা প্রথম বাঙালী মেয়ে, যদিও পাঠ্য বই ছাড়া তার জয়গান কাউকে গাইতে দেখা যায়নি। কিন্তু এবার একুশের রাজনীতিতে বিজেপির নির্বাচনী ইস্তাহারে ভোট প্রতিশ্রুতিতে উঠে এলো সেকালের লড়াকু যোদ্ধা কাদম্বিনী গঙ্গোপাধ্যায়ের কথা।

‘কাদম্বিনী গঙ্গোপাধ্যায় স্বাস্থ্য কাঠামো তহবিল’ অর্থাৎ বিজেপির প্রকল্প প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার। বিজেপি বাঙলায় ক্ষমতায় এলে জেলায় জেলায় স্বাস্থ্যকেন্দ্র অর্থাৎ জেলা হাসপাতাল সহ মেডিক্যাল কলেজও গড়ে তুলবে। প্রত্যেকটি ব্লকে স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং তার সাথে প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রও গড়ে তুলবে প্রতিটি গ্রাম পঞ্চায়েতে, সুতরাং প্রকল্পের সবটা জুড়েই বাঙলার মেয়ে কাদম্বিনী। তৎকালীন সামাজিক বিধি নিষেধ না মেনেই এবং হিন্দু ধর্মের বিরোধিতা করেই তিনি তাঁর লড়াই চালিয়ে গিয়েছিলেন, যা সমাজের সমগ্র মহিলা জাতিকে অনুপ্রেরণা জোগায়। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার অর্থাৎ হিন্দুবাদী সরকার সেকালের হিন্দু ধর্মের কুসংস্কার অর্থাৎ নারীবিদ্বেষী ধর্মের বিরুদ্ধে গিয়েই একুশ শতকে নারীদের গুরুত্ব ঠিক কতখানি অর্থাৎ আধুনিক চিন্তাধারার মনোভাব ঘটিয়ে বাঙলার লড়াকু মহিলা কাদম্বিনীকে ভোট ইস্তেহারের প্রতিশ্রুতিতে দাঁড় করিয়েছেন যা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।

সম্প্রতি ২০২০ সালে বাংলা টেলিভিশন ধারাবাহিকে জনপ্রিয় দুটি চ্যানেলে ‘কাদম্বিনী’ এবং ‘প্রথমা কাদম্বিনী’ শুরু হয়েছিল, ইতিহাসের পাতায় থাকা লড়াকু মেয়েটার নাম সকলে ভুলে গেলেও ধারাবাহিক দুটি  বাংলার আট থেকে আশি সকলকেই পুনরায় মনে করিয়ে  দিয়েছে কাদম্বিনীর লড়াইয়ের কথা অর্থাৎ সামাজিক গণ্ডি পেরিয়ে ময়দানে কিভাবে টিকে থাকতে হয়। বিজেপি কি পারবে অদম্য লড়াইয়ের মধ্য দিয়েই বাঙালি মেয়ে কাদম্বিনীকে আইকন করে বাঙলার বুকে জায়গা করে নিতে? সেটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন।

ধারাবাহিক থেকে শুরু করে রূপালি পর্দার অনেক চেনা মুখই বিজেপির প্রার্থী তালিকায়, এবার ধারাবাহিকের চরিত্রকেও হাতিয়ার করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। উষশী রায় অর্থাৎ ‘কাদম্বিনী’ চরিত্রে যিনি অভিনয় করেছেন তাঁর মুখ থেকে এই ইস্তাহারের প্রশংসা করতে শোনা গেছে, তিনি বলেছেন- “ইস্তাহারের ঘোষণা যে দলই করুক না কেন, কাদম্বিনী গঙ্গোপাধ্যায়কে যে সামনে আনা হচ্ছে, তা জেনেই বেশ ভালো লাগছে”। ‘প্রথমা কাদম্বিনী’র পরিচালক বলেছেন- “কাদম্বিনী দেবীর নামে প্রকল্প ঘোষিত হওয়ার পিছনে যদি তাদের ধারাবাহিকের কোনও অবদান থাকে, তবে তা আমাদের কাছে আনন্দের”। সুতরাং বাঙালির মেয়ে কাদম্বিনীকে সামনে রেখে বাঙলার মানুষের ঠিক কতটা মন জয় করতে পারবে বিজেপি সরকার সেটাই একুশের নির্বাচনে জনগণ বুঝিয়ে দেবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here