বাংলার সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই জয়া বচ্চনের, কাজে দেবে না তৃণমূলের এই ট্রিকস, দাবি দিলীপ ঘোষের

0

কলকাতা: বাংলার ছেলে তথা ভারতীয় সিনেমার দাদাকে ভোট প্রচারে নামিয়েছে বিজেপি। ৭ মার্চ ব্রিগেডের মঞ্চ থেকেই প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে বিজেপির পতাকা হাতে তুলে নিয়েছেন মিঠুন চক্রবর্তী। তারপর থেকে বিজেপির হয়ে দলীয় সভা-সমাবেশে উপস্থিত থেকেছেন বাংলার এই ছেলে। এবার তাই মিঠুনের পাল্টা হিসেবে মাস্টারস্ট্রোক হিসেবে তৃণমূল ভোট প্রচারে নামাচ্ছে বাংলার মেয়ে জয়া বচ্চনকে। তবে জয়াকে বাঙালি কন্যা বলে মানতে নারাজ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। ‘জয়া বচ্চনের সঙ্গে বাংলার কী সম্পর্ক রয়েছে বলেই প্রশ্ন করেছেন তিনি।

জয়াকে দিয়ে তৃণমূল বিজেপিকে টেক্কা দিতে পারবে না বলে দাবি করেছেন দিলীপ। সেই সঙ্গে তিনি বলেন যে, “জয়া বচ্চনের সঙ্গে বাংলার কী সম্পর্ক! উনি বাংলার মানুষের জন্য কী করেছেন! উনি বাংলাতে আসেননি, থাকেননি।” একই সঙ্গে বাংলার ছেলে মিঠুনের নির্বাচনী প্রচার টেনে বলেন, “মিঠুন চক্রবর্তী বাংলার ছেলে। বাংলায় কাজ করেছেন। বাংলার মানুষ তাঁকে ভালোবাসে। তাঁর জনসভায় মানুষের যে উচ্ছ্বাস তাতেই বোঝা যায় তাঁকে কতটা আপন ভাবেন সাধারণ মানুষ।” তৃণমূল যতই চেষ্টা করুক না কেন মিঠুনের মত বাঙালির কাছে আপন হতে পারবেন না জয়া এমনটাই বলেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। রবিবার সন্ধে সাড়ে ৭টা নাগাদ কলকাতা বিমানবন্দরে নেমেছেন জয়া বচ্চন। আজ, সোমবার থেকে ‘বাংলার মেয়ে’-র হয়ে নির্বাচনী প্রচারের ময়দানে নামবেন ‘ধন্যি মেয়ে’।

রবিবার জয়াকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানান তৃণমূল সাংসদ ও সর্বভারতীয় মুখপাত্র ডেরেক ও’ব্রায়েন, রাজ্যের মন্ত্রী ও তৃণমূলের নেত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। ৫ থেকে ৮ এপ্রিল পর্যন্ত তৃণমূলের প্রচারে থাকবেন জয়া। ৬ ও ৭ এপ্রিল চারটি রোড শো-তে থাকবেন তিনি। সূত্রের খবর বিজেপির সাংসদ প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয় বিরুদ্ধেই প্রচার শুরু করবেন তিনি। জয়া বচ্চন টালিগঞ্জের তিন বারের বিধায়ক অরূপ বিশ্বাসের হয়েও প্রচার করবেন। ডেরেক জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে দাঁড়াতেই জয়া বচ্চন এসেছেন মুম্বই থেকে। আর সেই কারণে তিনি তৃণমূল তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞ বলেও জানিয়েছেন তিনি। সমাজবাদী পার্টির সাংসদ জয়া বচ্চন। কয়েকদিন আগেই সমাজবাদী পার্টির নেতা অখিলেশ যাদব জানিয়েছিলেন, বিজেপি পশ্চিমবঙ্গে ঘৃণার রাজনীতি করছে। আর সেই কারণে বিজেপির বিরুদ্ধে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে তিনি দাঁড়াতে চান। অখিলেশ যাদবের কথায় ‘মমতা দিদির হাত শক্ত করতে আর বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করতে আমাদেরও দায়িত্ব রয়েছে।’ বচ্চন-ঘরণী হিসেবে জয়ার তৃণমূলের হয়ে প্রচার কি অন্য সমীকরণ? না নিছক বিজেপি-বিরধিতা, উত্তর খুঁজছে পর্যবেক্ষক মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here