ডার্বির আগে কার্যত তৈরি এসসি ইস্টবেঙ্গল, শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি ফাউলার অ্যান্ড কোম্পানির

0

পানাজি, গোয়া : আর তিন দিন বাদেই বড় ম্যাচে নামতে চলেছে স্পোর্টিং ক্লাব ইস্টবেঙ্গল। সামনে শক্তিশালী এটিকে-মোহনবাগান। কলকাতা ডার্বির মত এমন হেভিওয়েট ম্যাচ দিয়ে আইএসএল এর অভিযান শুরু করার আগে দলগঠন কার্যত তৈরি ফাউলার অ্যান্ড কোম্পানির। তবে এখনও কিছু জায়গায় সমস্যা তৈরি হচ্ছেই, আর সে নিয়ে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি নিচ্ছে লাল-হলুদ টিম ম্যানেজমেন্ট।

৩-৫-২ ফর্মেশনে এসসি ইস্টবেঙ্গলকে খেলানোর ভাবনা কোচ রবি ফাউলারের। যেখানে থ্রি ম্যান ডিফেন্স লাইনে একপ্রকার নিশ্চিত স্কট নেভিল এবং ড্যানি ফক্স। এদিকে তৃতীয় ডিফেন্ডার হিসেবে মহম্মদ ইরশাদকে খেলাতে চাইছেন ফাউলার। দুই স্ট্রেচেবল উইংয়ে অফেন্স ও ডিফেন্স সামলাতে বাঁদিক থেকে খেলবেন নারায়ণ দাস, এটি একপ্রকার নিশ্চিত। অন্যদিকে রাইট উইংয়ে চুল্লোভাকে খেলানোর কথা থাকলেও হাঁটুর চোটের জন্য কলকাতায় ফিরে গিয়েছেন এই মিজো উইংব্যাক।

এর ফলে ইস্টবেঙ্গলের ঘরের ছেলে সামাদ আলি মল্লিকের উপর ভরসা রাখছেন রবি ফাউলার। এর আগে একাধিক মরশুমে ডানদিক থেকে দুর্দান্ত আক্রমণ তৈরি করতে দেখা গিয়েছে সামাদকে। ডিফেন্সিভ দিক থেকে কিছুটা দূর্বল থাকলেও রবি ফাউলার তাকেই প্রথম একাদশে রাখবেন। এদিকে মিডফিল্ডে কিছুটা পিছন থেকে শুরু করবেন জার্মান মিডিও ম্যাটি স্টেইনম্যান। এদিকে অ্যাটাকিং মিডফিল্ডে শুরু করবেন জাক মাঘোমা এবং অ্যান্থনি পিলকিংটন। পরিবর্ত হিসেবে নামতে পারেন ইউজিনসেন লিংডো।

এদিকে ফরোয়ার্ডে জেজে ও বলবন্তের জোড়া ফলা ব্যবহারের কথা ভাবছেন ফাউলার। জেজের ফিটনেস নিয়ে কিছুটা চিন্তা থাকলেও সেকেন্ড স্ট্রাইকার হিসেবে বলবন্তকে বল তৈরি করে দিতে পারবেন জেজে। সেক্ষেত্রে অ্যারন আমাদি হলোওয়েকে আবারও সুপার সাব হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন রবি ফাউলার।

এদিকে গোলকিপিং নিয়ে কিছুটা চিন্তায় রয়েছে ইস্টবেঙ্গল শিবির। চার গোলকিপারের মধ্যে দেবজিত মজুমদার সবথেকে অভিজ্ঞ হলেও দীর্ঘ সময় ধরে তিনি প্রথম একাদশে নেই। সে দিক থেকে শঙ্কর রায় এবং মির্শাদকে পছন্দ হয়েছে গোলকিপার কোচ ববি মিমসের। এই দুই গোলকিপারকে নিয়েই বেশি অনুশীলন করেছেন মিমস সাহেব। কেরালা ব্লাস্টার্সের বিরুদ্ধে অনুশীলন ম্যাচেও শঙ্কর শুরু করেছিলেন, দ্বিতীয়ার্ধে এসেছিলেন মির্শাদ। সেক্ষেত্রে ডার্বিতে হয়ত ইস্টবেঙ্গলের হয়ে শুরু করতে পারেন মোহনবাগান প্রাক্তনী শঙ্কর রায়।