ঐতিহাসিক ডার্বিতে লাল-হলুদ মশাল নিভিয়ে জয়যাত্রা অক্ষুণ্ণ রাখল এটিকে-মোহনবাগান

0

এসসি ইস্টবেঙ্গল – ০

এটিকে-মোহনবাগান – ২ (রয় কৃষ্ণা, মনবীর সিং)

ভাস্কো, গোয়া : প্রায় এক বছরের প্রতীক্ষা, গোয়ার তিলক ময়দানে এসসি ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে এটিকে-মোহনবাগানের এই লড়াইয়ে স্বাক্ষী ছিল গোটা বাঙালি সহ ভারতীয় ফুটবল মহল। আর এবারেএ ঐতিহাসিক ডার্বিতে দুরন্ত জয় পেল এটিকে-মোহনবাগান।

কেরালার বিরুদ্ধে প্রথম একাদশ থেকে এই ম্যাচে একটিই বদল করেছেন সবুজ-মেরুণ কোচ আন্তোনিও হাবাস। প্রণয় হালদারের পরিবর্তে জয়েশ রানে এবং এডু গার্সিয়ার জায়গায় ডেভিড উইলিয়ামসকে নামানো হয়েছে। এদিকে এসসি ইস্টবেঙ্গল বলবন্ত এবং মাঘোমাকে উপরে রেখে শুরু করেছিল।

প্রথম থেকে দুই টিমই বেশ বুঝেশুনে শুরু করেছিল। ৮ মিনিটে দুর্দান্ত স্কিলের মাধ্যমে অ্যান্থনি পিলকিংটন বক্সে ঢুকে গেলেও তাকে আটকে দেন তিরি। এদিকে এটিকে-মোহনবাগান একাধিক বার ডানদিক থেকে আক্রমণে উঠছিল। কিন্তু দুই দলের ডিফেন্সই যথেষ্ট পোক্ত ছিল, যদিও ইস্টবেঙ্গলের হয়ে রানা ঘরামিকে বেশ দূর্বল লাগছিল। তবে দুই দলই বেশ কয়েকবার সুযোগ পেয়েছিল। ৩৬ মিনিটে এটিকে-মোহনবাগানের জাভি হার্নান্ডেজ শট মারলে সেটি দুর্দান্ত সেভ করেন দেবজিত মজুমদার। তবে শেষ অবধি গোলশূন্য অবস্থায় খেলা শেষ হয়।

তবে দ্বিতীয়ার্ধে নেমেই দুরন্ত এটিকে-মোহনবাগান। ৪৯ মিনিটে স্কট নেভিলের পায়ের ফাঁক দিয়ে রয় কৃষ্ণার জোরালো শট বাঁচাতে পারেননি লাল-হলুদ গোলকিপার দেবজিত। এরপর যেন দ্বিতীয়ার্ধের অধিকাংশ সময় মাঠ দাপিয়ে বেড়ায় এটিকে-মোহনবাগান। ইস্টবেঙ্গল একাধিকবার সুযোগ পেলেও হাতছাড়া করেন। এরপর ৮৫ মিনিটে নিজেদের গোল ব্যবধান দ্বিগুন করে নেয় সবুজ-মেরুণ শিবির। ডানদিক থেকে নারায়ণ দাসকে বিট করে একক দক্ষতায় দুর্ধর্ষ গোল করে মনবীর সিং। শেষ অবধি এই দুরন্ত ব্যবধানেই জেতে ইস্টবেঙ্গল।

দুই দলই বেশ ভালো খেললেও তফাত গড়ে দিয়েছিলেন ভারতীয় খেলোয়াড়রা। একদিকে এটিকে-মোহনবাগানের দুরন্ত ভারতীয় স্কোয়াড, অন্যদিকে তথাকথিত নয়া ভারতীয় স্কোয়াড ইস্টবেঙ্গলের। ফলে পার্থক্য যে ছিলই, তা বলতে দ্বিধা নেই।