প্রত্যয়ী নর্থইস্টে মাত ফেভারিটস এটিকে-মোহনবাগান, দেখে নিন সবুজ-মেরুণের পজিটিভ-নেগেটিভ

0

পানাজি, গোয়া : গতকালের ম্যাচ নিয়ে অনেকেরই ধারণা ছিল, অনায়াসে জিতে যাবে এটিকে-মোহনবাগান এবং শীর্ষস্থানের লড়াই বেশ জমজমাট হবে। কিন্তু আইলিগ জয়ী কোচ খালিদ জামিলের অধীনস্থ ধুঁকতে থাকা নর্থইস্ট ইউনাইটেডের প্রত্যয়ী খেলায় মাত খেল তারকাখচিত এটিকে-মোহনবাগান। আর এর জেরে শীর্ষস্থানে যাওয়ার লড়াইয়ে যেমন কিছুটা পিছিয়ে গেল সবুজ-মেরুণ ব্রিগেড, অন্যদিকে প্লে অফে যাওয়ার লড়াইয়ে বেশ এগিয়ে গেল নর্থইস্ট।

গতকাল এটিকে-মোহনবাগানের খেলায় বেশ কিছু ত্রুটি খুঁজে পান বিশেষজ্ঞরা। আর এই পরিস্থিতিতে ম্যাচ থেকে বেশ কিছু পজিটিভ ও নেগেটিভ বিষয় উঠে এসেছে।

পজিটিভ :

কোমল থাটাল – তরুণ এই মিডফিল্ডার বেশ ভালো পারফর্ম করেছেন এই ম্যাচে। প্রবীর দাসের পরিবর্ত হিসেবে নেমে এক নয়া উদ্যম এনেছেন মাঝমাঠে। রয় কৃষ্ণার গোলের ক্ষেত্রে খেলাটি তৈরি করেছিলেন থাটাল। এছাড়াও গোটা মাঠ জুড়ে নিজের আধিপত্য বজায় রেখেছিলেন কোমল।

অরিন্দম ভট্টাচার্য – গতকাল অরিন্দম না থাকলে এটিকে-মোহনবাগানকে কার্যত গোলের মালা পরিয়ে দিত নর্থইস্ট ইউনাইটেড। অসাধারণ কয়েকটি সেভ করেন ম্যাচে। যদিও দুটি গোলের ক্ষেত্রে অরিন্দম কার্যত অসহায় ছিলেন। কিন্তু তিনকাঠির নীচে তিনিই শেষ ভরসা, তা বলাই যায়।

নেগেটিভ :

জাভি হার্নান্ডেজ – এদিনের ম্যাচে অত্যন্ত সাধারণ লেগেছে জাভির খেলা। স্প্যানিশ এই মিডফিল্ডার ডেড বল থেকেও সেভাবে গুরুত্বপূর্ণ বল বাড়াতে পারেননি। এবং মিডফিল্ডে একেবারে আটকে পড়ে গিয়েছিলেন নর্থইস্টের খেলোয়াড়দের কাছে, যার জেরে মাঝমাঠের সেই ফ্লো হারিয়ে যায়।

তিরি – গতকাল একেবারেই ভালো খেলতে পারেননি স্প্যানিশ এই ডিফেন্ডার। বারবার ফেডেরিকো গ্যালেগো এবং ইদ্রিসা সিলা তাঁকে বিট করে যাচ্ছিলেন। দুটি গোলও আসে কার্যত তার দিক থেকেই। বড্ড বেশি জায়গা দিয়ে ফেলছিলেন নর্থইস্টের আক্রমণভাগকে, যা পূরণ করতে পারেননি সন্দেশ ঝিঙ্গান ও প্রীতম কোটাল।

ডেভিড উইলিয়ামস – একেবারেই ছন্দে ছিলেন না ডেভিড উইলিয়ামস। আক্রমণভাগে সেভাবে তাঁকে জায়গা তৈরি করতে দেননি ডিলান ফক্স ও শরিফ, আর এতে কার্যত আটকে যান ডেভিড উইলিয়ামস। এমন পরিস্থিতিতে পুরো ফিট থাকা অবস্থাতেও পরিবর্ত করে তোলা হয় তাঁকে।