রয় কৃষ্ণা-মার্সেলিনহো জুটিতে কাত বেঙ্গালুরু এফসি, সবুজ-মেরুণ শিবিরে এল এই পজিটিভ-নেগেটিভ

0

কলকাতা : ধীরে ধীরে যেন এটিকে-মোহনবাগান দুর্ধর্ষ ফর্মে চলে এসেছে। স্ট্রাইক ফোর্সে মার্সেলিনহোর আগমণে সবুজ-মেরুণ শিবির যেন বাগানে পরিণত হয়েছে। গতকাল দূর্বল বেঙ্গালুরু এফসিকে দাপটের সাথে দুই গোলে হারিয়ে শীর্ষস্থানে যাওয়ার লড়াইয়ে একেবারে কাছাকাছি পৌছে গেল হাবাস বাহিনী।

আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলে অবিরত বেঙ্গালুরু এফসির উপর চাপ তৈরি করে গিয়েছে এটিকে-মোহনবাগান। আর এতে বেশ কিছু পজিটিভ পেয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট, তা বলাই যায়। তবে এই দুরন্ত জয়ের মাঝেও কিছু নেগেটিভ বিষয়ও উঠে এসেছে। দেখে নেওয়া যাক পজিটিভ ও নেগেটিভের বিষয়গুলি।

পজিটিভ :

রয় কৃষ্ণা – সবুজ-মেরুণ ব্রিগেডের মসীহা রয় কৃষ্ণা এদিন কার্যত ছারখার করে দিয়েছিলেন বেঙ্গালুরু এফসির ডিফেন্সকে। একাধিকবার গুরুতপূর্ণ সময়গুলিতে বক্সের ভিতরে গিয়ে ফাঁকা জায়গা তৈরি করে নিচ্ছিলেন কৃষ্ণা। আর ওপেনিং গোলও আসে তার পা থেকেই।

মার্সেলিনহো – ওড়িশা এফসির মার্সেলিনহো আর এটিকে-মোহনবাগানের মার্সেলিনহোর মধ্যে যেন বিস্তর তফাত। সঠিক জহুরির কাছে যেমন পুরোনো সোনাও চকচকে হয়ে ওঠে, হাবাসের অধীনে মার্সেলিনহো নিজের পুরোনো খেলা ফিরে পেয়েছেন। দুর্দান্ত ফ্রি কিক থেকে গোল করা, অফ দ্য বল রান, দুর্দান্ত স্কিল – পুরোনো সেই মার্সেলিনহোকে আবারও ফিরে পেল ভারতীয় ফুটবল।

লেনি রডরিগেজ – আরও একজন খেলোয়াড় যিনি এটিকে-মোহনবাগানে এসে নিজেকে আবারও ফিরে পেয়েছেন। পরপর দুই ম্যাচে দুর্দান্ত ফুটবল খেলেছেন লেনি। পাসিং হোক কিংবা বল হোল্ডিং – সব ক্ষেত্রেই দারুণ বুদ্ধিমত্ত্বার পরিচয় রেখেছেন লেনি।

Image

নেগেটিভ :

ডেভিড উইলিয়ামস – এদিন রয় কৃষ্ণার সাথে অ্যাটাকিং ফরোয়ার্ডে শুরু করলেও নিজেকে প্রমাণ করতে পারলেন না অসি এই ফুটবলার। প্রতিনিয়ত অফ পজিশনে চলে যাচ্ছিলেন, সেভাবেই নজরেই আসেননি উইলিয়ামস।

Image

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here