ডার্বির রঙ লাল-হলুদ, এই আশায় সমর্থকদের উজ্জীবিত করতে আবেগপূর্ণ বার্তা ইস্টবেঙ্গল কর্মকর্তাদের

0

কলকাতা : এবারের ডার্বির আমেজ যেন কিছুটা ঝিমিয়েই রয়েছে। একদিকে এটিকের সাথে সংযুক্ত হওয়া এক নয়া এটিকে-মোহনবাগান, এদিকে লিগ টেবিলে কার্যত ধুঁকতে থাকা অবস্থায় রয়েছে এসসি ইস্টবেঙ্গল, খেলা সেই সুদূর গোয়ায়, এবং সর্বোপরি, দর্শকশূন্য মাঠে হবে কলকাতা ডার্বি। ফলে এত কিছু নেতিবাচকতা নিয়েই আয়োজিত হবে আইএসএলের দ্বিতীয় লেগের কলকাতা ডার্বি।

কিন্তু ডার্বির উত্তেজনা বজায় রয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া এবং বাংলার একাধিক জায়গায়। জায়ান্ট স্ক্রিনে খেলা দেখা থেকে শুরু করে পাড়া লাল-হলুদ কিংবা সবুজ-মেরুণে সাজিয়ে দেওয়া – সমস্ত প্রস্তুতিই চলছে। এই অবস্থায় আন্ডারডগ হিসেবে নামা এসসি ইস্টবেঙ্গলকে নিয়ে বেশ আবেগপূর্ণ এবং গা গরম করা মন্তব্য করলেন ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের কর্মকর্তারা। গতকাল ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের ফেসবুক পেজে কর্মকর্তা ও প্রাক্তন ফুটবলারদের বক্তব্য তুলে ধরা হয়েছে।

লাল-হলুদের সচিব কল্যাণ মজুমদার কবিতার ছন্দে ক্লাবের জয়ের কথা জানালেন। তিনি লিখেছেন,
“লাল হলুদের কেতন উড়াও,
গুড়িয়ে সকল বাধা বন্ধ।
ছিনিয়ে আনো নতুন আশার,
প্রদীপ শিখায় পারিজাতের গন্ধ”।

ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের সহ সচিব রুপক সাহা নিশ্চিত যে এসসি ইস্টবেঙ্গল এই ডার্বি জিতবে। তিনি লিখেছেন, “আমরা জিতবো। বাংলার সবাই অপেক্ষা করছে সেই মুহূর্তটার জন্য। ব্যক্তিগতভাবে আমার মতামত, আমরা তৈরী আছি। যেকোনো মূল্যে কাল ওদের আমরা হারাবোই”।

এদিকে ফুটবল সচিব সৈকত গঙ্গোপাধ্যায় ইস্টবেঙ্গলকে খোঁচা খাওয়া বাঘের সাথে তুলনা করলেন। তিনি লিখেছেন, “খোঁচা খাওয়া বাঘ আর পিছিয়ে পড়া ইস্টবেঙ্গল – দুটোই একই রকম। কাল সেরকমই হবে। আমরা জিতবো”।

সব শেষে, লাল-হলুদের শীর্ষকর্তা তথা পরিচালন কমিটির সদস্য দেবব্রত (নীতু) সরকার বলেছেন, এটিকে-মোহনবাগান নয়, রেফারিই হচ্ছে মূল কাঁটা। এই নিয়ে তিনি লিখেছেন, “আমাদের ম্যাচ এটিকে-মোহনবাগানের সাথে না। আমাদের ম্যাচ, যে খেলা পরিচালনা করে, সেই রেফারির সাথে। আমরা তারকাটা অতিক্রম করে এপারে এসেছি, কিন্তু, বিগত ৫-৬ বছর ধরে রেফারির কাঁটাটা উত্তীর্ণ করতে পারছি না। যদি নিরপেক্ষতা পাই, তাহলে আমাদের কেউ হারাতে পারবে বলে আমার মনে হয় না।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here