করোনায় ট্রাম্প যে ওষুধের জন্য হুমকি দিচ্ছে ভারতকে, সেই প্রতিষেধক তৈরিতে পথিকৃৎ বাংলা

0

কলকাতা : হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন নামক একটি ওষুধ নিয়ে এই মুহুর্তে গোটা বিশ্ব তাকিয়ে রয়েছে ভারতের দিকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যখন এই ওষুধকে করোনার প্রতিষেধক হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল, তখন সবার প্রথম ভারতই এই ওষুধ প্রদানে সচেষ্ট হয়েছিল। আজ যখন মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প হুমকি দিচ্ছে ভারতকে, সেই ওষুধের উৎপত্তিস্থল আসলে কোথায়? গোটা ভারতবর্ষের মধ্যে সর্বপ্রথম পশ্চিমবঙ্গেই তৈরি হয় ক্লোরোকুইন ওষুধ, যা থেকে পরবর্তী সময়ে তৈরি হয়েছে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন। আর তা প্রথম তৈরি হয় ঐতিহ্যশালী বেঙ্গল কেমিক্যালসে।

১৯০১ সালে স্বদেশি ভাবনায় এই সংস্থাটি তৈরি করেছিলেন আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়। আজ শতাব্দীপ্রাচীন এই সংস্থাটি একটি সরকারি অধিকৃত সংস্থা হিসেবে রয়ে আছে। বর্তমানে এর নাম বেঙ্গল কেমিক্যালস অ্যান্ড ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড। আর এই সংস্থাই ভারতবর্ষের প্রথম ওষুধ প্রস্তুতকারক হিসেবে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন বানাতে সক্ষম হয়েছিল। এমনকি করোনা নিয়ে ভারতের টাস্ক ফোর্স ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চও এই ওষুধকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

তবে এই ওষুধটি পরিচিতি ছিল ম্যালেরিয়ার প্রতিষেধক হিসেবে। এছাড়া আরও একটি ওষুধ পরিচিত হয়েছে এই করোনার দুঃসময়ে, এটির নাম অ্যারিথ্রোমাইসিন। আর এই ওষুধটিও তৈরি করেছে বেঙ্গল কেমিক্যালস। সম্প্রতি কিছু পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে, করোনার মোকাবিলায় এই দুটি ওষুধই যথেষ্ট কার্যকরী। তবে বর্তমানে কাঁচামালের অভাবে প্রয়োজনীয় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন তৈরি করতে পারছে না বেঙ্গল কেমিক্যালস। তবে এই মুহুর্তে কেবল ১০ লক্ষ হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ট্যাবলেট বানাতে সক্ষম বেঙ্গল কেমিক্যালস। যার মধ্যে ৫ লক্ষ ওষুধ মজুত রয়েছে মানিকতলায়। এই মুহুর্তে ভারতবর্ষের অন্য কিছু জায়গায় এই ওষুধ তৈরি করলেও বেঙ্গল কেমিক্যালসের মত এত বিশাল পরিমাণে ওষুধ তৈরির সামর্থ্য নেই।

আর তাই, বিশ্বের এই কঠিন পরিস্থিতিতে গোটা বিশ্ব আজ তাকিয়ে আছে বাংলার দিকে, বলা ভালো বেঙ্গল কেমিক্যালসের দিকে।