বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর: করোনা আবহেও ‘লক্ষীলাভ’ রাজ্যের পুজোকমিটিগুলির

0

কলকাতা: রাজ্যজুড়ে করোনার জেরে চিন্তা ছিল কিভাবে আয়োজন হবে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজো। আর এক মাসও বাকি নেই বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসবের। তবে এবার আর প্রতিবারের মতো সেই চেনা ভিড় চেনা ছন্দ থাকবে না। করোনা কালে কিভাবে হবে দুর্গাপুজো, কি কি নিয়ম মানলে দর্শনার্থীদের সুরক্ষিত রাখা যাবে তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করতে বৃহস্পতিবার কমিটিগুলির সঙ্গে বৈঠক কর্লেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৈঠকের পরেই তিনি ঘোষণা করেন পুজো কমিটিগুলোকে এবার ৫০ হাজার টাকা করে দেবে সরকার।

যদিও নবান্নের পক্ষ থেকে পুজো কমিটিগুলিকে টাকা দেওয়ার রীতি শুরু হয়েছে। গত বছরও ২৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে রাজ্যের পক্ষ থেকে আরও সুবিধা করে দেওয়া হল পুজো কমিটিগুলির জন্য। জানানো হয়েছে, এই বছর পুজো কমিটিগুলিকে দমকল ও পুরসভাও কোনও ফি দিতে হবে না। এর আগে রাজ্যের ২৮ হাজার পুজো কমিটিকে এই ‘স্বল্প দান’ দিয়েছিল সরকার। সেই হিসাবে অনুযায়ী এই বছর স্বল্প দানের জন্য ১৪০ কোটি টাকা খরচ হবে। এছাড়াও সিইএসসি ও রাজ্য বিদ্যুৎ পর্ষদও বিদ্যুৎ ছাড় দেবে ৫০ শতাংশ।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী জানান, “আমাদের টাকা নেই পয়সা নেই সেটা ঠিক। তবে পুজো কমিটিগুলি আমি জানি খুব প্রবলেমে রয়েছে। আমাদের একটা স্বল্প দান তো আমরা দিই। দান নয় ভালবাসা। এবার যেহেতু আপনাদের সমস্যা একটু বেশি রয়েছে। এ বার রাজ্য সরকার আপনাদের ৫০ হাজার টাকা করে দেবে প্রত্যেকটা পুজো কমিটিকে।” তবে পুজো কমিটি গুলিকে টাকা দেওয়া নিয়ে এর আগেও বিরোধীদের রোষের মুখে পড়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এমনিতেই করোনা আবহে রাজ্য সরকারের রাজস্ব আয় প্রায় নেই। এর মধ্যে রাজ্যের মানুষের কথা না ভেবে পুজোকমিটির প্রতি উদার মনোভাব দেখিয়ে আবারও বিরোধীদের কটাক্ষের শিকার হতে পারেন তিনি।