দলত্যাগীদের জন্য খর্ব হয়নি ঘাসফুলের শক্তি! শুক্রবার ২৯৪ টি আসনের পূর্ণাঙ্গ প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করবেন মুখ্যমন্ত্রী

0

কলকাতা : সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই শুরু হচ্ছে একুশের হাই ভোল্টেজ বঙ্গ নির্বাচন। গত সপ্তাহেই ভোটের নির্ঘন্ট ঘোষণা করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। মোট আট দফায় ২৯৪ টা আসনে এক মাস ধরে ভোট হবে। তাই প্রার্থী তালিকা তৈরি নিয়ে জোরকদমে প্রস্তুতি পর্ব চলছে রাজনৈতিক দলগুলোর কার্যালয়ে। বিগত কয়েক মাসে বঙ্গ রাজনীতির সমীকরণের আমূল পরিবর্তন হয়েছে। দলবদলুদের জেরে বিধানসভায় প্রার্থী দিতে হিমশিম খাচ্ছে রাজ্য বিজেপি। কারণ এক একটি আসনের জন্য বহু প্রভাবশালীরা প্রার্থী হতে চাইছে। অন্যদিকে একের পর এক হেভিওয়েট নেতাকে হারিয়েও তৃণমূল প্রত্যাবর্তন নিয়ে আত্মবিশ্বাসী। তাই প্রার্থী তালিকায় একাধিক চমক থাকবে তার ইঙ্গিত ইতিমধ্যেই পাওয়া গিয়েছে।

কিন্তু তার আগেই বড় খবর ঘাসফুল শিবির থেকে। আট দফার ভোটে ধাপে ধাপে প্রার্থী ঘোষণা নয়, আগামি শুক্রবার ২৯৪ টা আসনের পূর্ণাঙ্গ প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করবে তৃণমূল। যা ভোটের আগে কৌশলী পদক্ষেপ শাসক দলের। কারণ অনেকের ধারণা নেতা হারিয়ে ছন্নছাড়া ঘাসফুল শিবির। কিন্তু ভোট শুরুর আগেই পূর্ণাঙ্গ প্রার্থী তালিকা দিয়ে শক্তি প্রদর্শন করতে চাইছে মমতা নেতৃত্বধীন শাসক দল। তাও আবার ভোট ঘোষণার এক সপ্তাহের মধ্যে। যা দলের ইতিহাসে কিছুটা ব্যতিক্রম। নেতারা দলত্যাগ করলেও দলের শক্তি যে বিন্দুবিসর্গ খর্ব হয়নি তা প্রমাণ করতে চাইছে তৃণমূল। ভোটের মুখে বিরোধীদল ও দলত্যাগীদের কৌশলিবার্তা ঘাসফুল শিবিরের। তাই শুক্রবার নিজেই পূর্ণাঙ্গ প্রার্থীতালিকা ঘোষণা করবেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।

পরিকল্পনা ছিল আট দফার ভোটে দফায় দফায় প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করবে তৃণমূল। বুধবারই একদফা তালিকা প্রকাশের কথা ছিল। ভোটের বাকি দফাগুলিতে কে কে লড়বেন, সেই তালিকা ঘোষণা হবে শুক্রবার, এমনই শোনা গিয়েছিল দলীয় সূত্রে। কিন্তু বুধবার সন্ধে নাগাদ পরিকল্পনায় বদল গিয়েছে। জানা যায়, শুক্রবারই একদফায় চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হবে ২৯৪ আসনের জন্য। আর ৯ তারিখ প্রকাশিত হবে ইস্তেহার। উল্লেখ্য আগেই দলের তরফ থেকে বলা দেওয়া হয়েছে যে অতি বর্ষীয়ান নেতাদের প্রার্থী তালিকা থেক বাদ দেওয়া হবে। অভিজ্ঞদের সঙ্গে নতুনদের মিশ্রণ থাকতে পারে এ বারের প্রার্থী তালিকায়। নতুনদের ও যুবশক্তিকে প্রাধান্য দিতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে শাসক দল।

প্রসঙ্গত বর্তমানে তৃণমূলের বিধায়ক সংখ্যা ২০৭। যদিও এদের অনেকেই টিকিট পাবেন না। উল্লেখ্যযোগ্য ভাবে এ বার বাদ যেতে পারেন সিঙ্গুরের বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য, শিবপুরের বিধায়ক জটু লাহিড়ী, বাসন্তীর বিধায়ক গোবিন্দ নস্কর ও হাওড়া দক্ষিণের বিধায়ক ব্রজমোহন মজুমদার। কারণ এঁদের প্রত্যেকের বয়স আশির ঊর্ধ্বে। তেমনি আবার বহু টলি তারকাকে টিকিট দেওয়া হতে পারে। সম্প্রতি তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন রাজ, সায়নি, অন্যান্য, সায়ন্তিকারা। এছাড়া এবারের প্রার্থী তালিকায় তারুণ্যের প্রাবল্য থাকার সম্ভাবনাও রয়েছে। ছাত্রনেতা তৃণাঙ্কুর ভট্টাচার্য, দেবাংশু ভট্টাচার্য, জয়া ভদ্রের মতো ছাত্রনেতৃত্ব একুশের বিধানসভা ভোটে লড়তে পারেন শাসকদলের হয়ে। ফলে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় অনেক নবীনের নাম থাকবে, তেমনটাই মনে করা হচ্ছে।