শান্তিপূর্ণ স্বাধীনতা দিবসের জন্য স্টেশন থেকে জঙ্গলে চলছে নাকা চেকিং

0

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদহ ও আলিপুরদুয়ার: স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে জঙ্গিরা নাশকতা চালাতে পারে সেই কারণে গুরুত্বপূর্ণ জেলাগুলিতে চলছে পুলিশের তল্লাশি অভিযান৷ পাশাপাশি জঙ্গলে চোরাশিকারিদের প্রবেশ রুখতে জঙ্গল সংলগ্ন বনবস্তি, গ্ৰাম ও জঙ্গল সংলগ্ন চা বলয়ে যৌথ টহলদারি শুরু করল বনদফতর ও সিআইএফ৷

মালদহ টাউন রেল স্টেশনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার দীপক সরকারের নেতৃত্বে আরপিএফ এবং জিআরপি যৌথভাবে তল্লাশি অভিযান চালায়। রেল যাত্রীদের ব্যাগ থেকে আরম্ভ করে রেল কামরা প্ল্যাটফর্মে রাখা সমস্ত পণ্য সামগ্রী বোম স্কোয়াডের টিম এবং স্নিফার কুকুর দিয়ে তল্লাশি চালানো হয়।

উত্তর পূর্ব ভারতের গুরুত্বপূর্ণ মালদহের এই রেল স্টেশন তাই কোনও ঝুঁকি নিতে নারাজ পুলিশ প্রশাসন৷ এই জেলাতেই রয়েছে ১৭২ কিলোমিটার ভারত বাংলাদেশ সীমান্ত। ফলে রেল পথ এবং সড়ক পথ জঙ্গিদের কাছে একটা লক্ষ্য বস্তু হতে পারে। তাই নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতেই স্বাধীনতা দিবসের আগে এই তল্লাশি অভিযান।

অনাদিকে আলিপুরদুয়ার জেলার কোদালবস্তি রেঞ্জের অন্তর্গত জঙ্গল সংলগ্ন গ্ৰাম, বনবস্তি, চা বাগানে যৌথ টহলরত চালায় বনদফতর ও সিআইএফ। এদিন কোদালবস্তি রেঞ্জের সংলগ্ন সুভাষিণী চা বাগান থেকে টহলদারি শুরু হয়। বনদফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, কোনও উৎসব পার্বণের সময় চোরাশিকারি জঙ্গলে প্রবেশ করার চেষ্টা করে৷

অতীতেও দেখা গিয়েছে উৎসবের দিন গুলো যখন সবাই ব্যস্ত থাকে সেই সুযোগে চোরাশিকারি জঙ্গলে প্রবেশ করে৷ তাদের লক্ষ্য বন্যপ্রাণী ও জঙ্গলের মূল্যবান কাঠ। এই চোরাশিকারিদের জঙ্গলে প্রবেশ রুখতে উদ্যোগ গ্ৰহণ করছে বনদফতর৷ যাতে স্বাধীনতা দিবসে জঙ্গলে চোরাশিকারিরা প্রবেশ করতে না পারে তার জন্য যৌথ টহলদারি চলছে।

বনদফতরের কর্তারা জানান, বন ও বন্যপ্রাণী রক্ষা করা আমাদের প্রধান কর্তব্য। অন্যদিকে আলিপুরদুয়ার জেলার বিভিন্ন প্রান্তে সঠিক নাকা চেকিং হচ্ছে বলে দাবি করেছেন আলিপুরদুয়ার জেলার পুলিশ সুপার নগেন্দ্র নাথ ত্রিপাঠী৷ কিন্তু আসাম বাংলা সীমান্তে কোন চেকিং হচ্ছে না সেই চিত্রও ধরা পরেছে। ১৫ আগস্ট নিয়ে আসাম বাংলা সীমান্তবর্তী এলাকায় প্রশাসন কেন তৎপর নয় তা নিয়ে উদ্বিগ্ন ওয়াকিবহাল মহল।