করোনা সামলানোর পাশাপাশি নির্বাচনের কথা ভেবে উন্নয়নে নজর মমতার

0

অরিত্রা দাশগুপ্ত, কলকাতা: “করোনা থাকবেই। তাই বলে কাজ ফেলে রাখা যাবে না। কয়েক মাস পরে নির্বাচন। নির্বাচন আসবে যাবে সরকার থাকবে। আপনারা থাকবেন। উন্নয়ন থেমে থাকবে না। তাই দ্রুততার সঙ্গে কাজ করতে হবে।“ মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফার প্রশাসনিক বৈঠক থেকে প্রশাসনিক কর্তাদের উদ্দেশ্যে এই বার্তাই দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার রাজ্যপালের নাম না করে যে মন্তব্য করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী, মঙ্গলবারের বৈঠকে অনেক বেশি প্রশাসনিক কাজের তৎপর হওয়ার নির্দেশ দিতে দেখা গেল তাকে।

এদিনের বৈঠকে ১০০ দিনের কাজকে সামনে রেখে আগামী দিনের পরিকল্পনা তৈরি করলেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের বহু চাষের জমিতে ইতিমধ্যেই জল জমতে শুরু করেছে। সেই কারণে মুখ্যমন্ত্রীর সেচ দপ্তর ও পঞ্চায়েত দপ্তরকে ‘জল ধরো জল ভরো’ প্রকল্পের কাজের নির্দেশ দেন। ন্যূনতম কর্মসূচির মাধ্যমে এই কাজ করতে হবে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। ১০০ দিনের কাজের ক্ষেত্রেও স্বচ্ছতা এবং গতি আনার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “যারা কাজ করেছিল ১০০ দিনে তাদের টাকা যেন বাকি না থাকে। কারণ এই সময় টাকা বাকি রাখা ঠিক নয়।” সাত দিনের মধ্যে যাতে টাকা দেওয়া হয় তার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। এমনকি বাংলার সড়ক যোজনার কাজ দ্রুততার সঙ্গে করে ফেলার নির্দেশ দেন মমতা।

তিনি বলেন, “ছোট ছোট রাস্তা রয়েছে তার ওপর নজর দিতে হবে। ছোট রাস্তায় বড় গাড়ি কোন রকম ভাবে অনুমতি দেওয়া যাবে না।” রাস্তার কাজ নিয়ে তিনি পূর্ব বর্ধমান জেলার সমালোচনা করেন। করোনা পরিস্থিতিতে রাজ্যের চিকিৎসাব্যবস্থার প্রশংসা শোনা যায় মুখ্যমন্ত্রীর মুখে। তিনি বলেন, “অন্য রাজ্য থেকে কেউ এলে তাদেরও উন্নত চিকিৎসা করতে হবে। কিন্তু তাদের ঠিকানা লিখুন।” এর পরেই জেলাশাসকদের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রী বার্তা দেন জেলা হাসপাতাল গুলোতে নিয়মিত স্বাস্থ্য দপ্তর এর তরফ থেকে ভিজিট করা হবে। করোনা পরিস্থিতিতে যাতে কোন প্রকার গাফিলতি না থাকে তা নিশ্চিত করতে মরিয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়।