স্বাস্থ্য পরিকাঠামো নিয়ে রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলিকে তীব্র ভৎর্সনা করল স্বাস্থ্য দপ্তর

0

অরিত্রা দাশগুপ্ত, কলকাতা: কোভিড ও নন কোভিড রোগীদের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রেখে রাজ্যের বহু হাসপাতালই সাধারণ মানুষকে পরিষেবা দিতে ব্যর্থ। বহু জায়গায় ডাক্তাররা আসতে পারছেন না। এমনকি সাধারণ মানুষের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় হাসপাতালের বহির্বিভাগ সঠিক সময় কাজ করছে না। আবার অনেক জায়গায় বেড থাকা সত্ত্বেও ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে সংকটজনক রোগীকে। এমনই অমানবিকতার দৃষ্টান্ত দেখেছে রাজ্য।

বুধবার রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের সঙ্গে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোর সুপার এবং প্রিন্সিপালদের বৈঠকে তীব্র বাদানুবাদ হয়। সবচেয়ে বেশি তিরস্কার করা হয়েছে কোচবিহার মেডিকেল কলেজকে। কলেজের প্রিন্সিপাল এদিন স্বাস্থ্যসচিব নারায়ন স্বরুপ নিগম পরিচালিত ওয়েবিনারে যোগ দিয়েছিলেন। বৈঠকে তাকে স্বাস্থ্যসচিব কিছু প্রশ্ন করেন। হাসপাতালের বহির্বিভাগে কত রোগী আসছেন, কত ডাক্তার আসছেন, কত রোগী ভর্তি? একটি প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিতে পারেননি প্রিন্সিপাল। ধমক দেওয়া হয়েছে এসএসকেএম হাসপাতালের এমএসডিপি ডাক্তার রঘুনাথ মিশ্রকেও। একই অবস্থা মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ এবং রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের।

প্রত্যেক হাসপাতালকে স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফ থেকে বলা হয়েছে হাসপাতালে কোভিড ও নন কোভিড রোগীদের অন্যরকম চিকিৎসার ব্যবস্থা রাখতে হবে। কোভিড রোগীদের জন্য যাতে নন কোভিড রোগীরা বিপন্ন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। স্বাস্থ্য দপ্তর জানিয়েছে, আরজিকর এনআরএস মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজে দূর-দূরান্ত থেকে রোগী আসছেন পরীক্ষা করাতে। কিন্তু ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়েও টেস্ট করাতে পারছেন না। সাধারণ জ্বরের রোগীকে অযথা হেনস্থা করা হচ্ছে। এবারের বৈঠকে এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মেডিকেল কলেজ গুলিকে সতর্ক করা হয় জানিয়ে দেওয়া হয় প্রত্যেকটি হাসপাতালের অভ্যন্তরীণ মূল্যায়ন করে তাদেরকে এ, বি, সি ক্যাটাগরিতে ফেলা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here