টিটাগড়ে বিজেপি নেতা খুনে ‘ডানহাত’ হারিয়ে তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি ক্ষুব্ধ অর্জুন সিং-এর

0

ব্যারাকপুর: রবিবারে প্রকাশ্যে দুষ্কৃতরা গুলি চালায় বিজেপি নেতা তথা ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং-এর ডান হিসাবে পরিচিত মণীশ শুক্লার উপর। দুষ্কৃতিদের গুলিতের খুন হন বিজেপি নেতা। এই ঘটনায় রেগে ফেটে ফেটে পড়েছেন বিজেপি নেতা অর্জুন সিং। ডান হাতকে খুনের ঘটনায় অর্জুন সিং তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন এই ঘটনার জন্য শাসক দলকে ফল ভোগ করতে হবে। বিজেপি নেতা মণীশ শুক্লার খুনের ঘটনায় আজ অর্থাৎ সোমবার ব্যারাকপুর মহকুমায় ১২ ঘন্টা বনধের ডাক দিয়েছে বিজেপি। পাশাপাশি রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে আবারও প্রশ্ন তুলেছেন। সেই সঙ্গে সোমবার সকাল ১০ টায় রাজভবনে রাজ্য পুলিশের ডিজি এবং অতিরিক্ত স্বরাষ্ট্রসচিবকে তলব করেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, বিজেপি-র ব্যারাকপুর সাংগঠনিক জেলার সদস্য এবং পেশায় আইনজীবী মণীশ শুক্লা রবিবার হাওড়ার এক দলীয় সভায় গিয়েছিলেন। সেখান থেকে ফিরেই টিটাগড় থানার পাশে বিটি রোডের ওপর দলীয় কার্যালয়ে বসেছিলেন। বসে থাকার সময় বাইকে আসা কয়েকজন দুষ্কৃতি তাঁকে লক্ষ করে কয়কটি গুলি চালায়। সেখানেই লুতিয়ে পড়েন বিজেপি নেতা। গুলি লাগে ঘাড় ও মাথায়। রক্তাক্ত অবস্থায় এই জেপি নেতাকে ব্যারাকপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থা খারাপ দেখে পরে সেখান থেকে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় কলকাতায় বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানেই চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। বিজেপি এই ঘটনার সমগ্র দায় তৃণমূলের উপর চাপিয়েছে। বিজেপি নেতা খুনের ঘটনায় এখন উত্তাল হয়ে রয়েছে বঙ্গ রাজনীতি।

এই ঘটনায় রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে অর্জুন সিং বলেছেন, ছোট ভাইয়ের মতো ছিল মণীশ শুক্লা ছিল। সর্বদাই তাঁর সঙ্গে থাকতেন তিনি। মণীশ শুক্লা খুনের জন্য রাজ্যের পুলিশদের হুঁশিয়ারি দিয়ে অর্জুন সিং বলেছেন এই ঘটনার জন্য পুলিশকে ফল ভোগ করতে হবে। বাংলায় সত্যি গণতন্ত্র নেই বলে কটাক্ষ করেছেন সৌমিত্র খান। নৈহাটির তৃণমূল বিধায়ক পার্থ ভৌমিকের কথায়, “এই ঘটনায় তৃণমূল কোনওভাবেই যুক্ত নয়। বিজেপির গোষ্ঠীকোন্দলের কারণেই এমন ঘটনা হয়ে থাকতে পারে।” মৃত বিজেপি নেতার উপর চার রাউন্ড গুলি চালানো হয় বলেই জানা গিয়েছে। তবে এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি। বিজেপি নেতা মণীশ শুক্লার খুনের ঘটনার পর থেকেই উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে ব্যরাকপুর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here