বন্ধ নবান্নের দরজা তবুও ভোট যুদ্ধের দামামা বাজাতে আজ বিজেপির লক্ষ্য নবান্নই

0

কলকাতা: হাতে আর বেশীদিন সময় নেই বঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের। ঠিক সেই কারণেই বিজেপি রাজ্য নেতৃত্ব কোমর বেঁধে মাঠে নেমে পড়েছে বঙ্গ দখলের লক্ষ্যে। পূর্ব পরিকল্পিত ভাবেই আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার নবান্ন অভিযানে মিছিল করবে বিজেপি। প্রায় দু লক্ষ লোক নিয়ে এই মিছিল হওয়ার কথা। কিন্তু বুধবারেই নবান্নের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার বন্ধ থাকবে নবান্ন। স্যানিটাইজ করার জন্যই এই সিদ্ধান্ত। তবে যতই নবান্ন বন্ধ থাকুক বিজেপির ‘নবান্ন অভিযানে’ ভাটা পড়বে না বলেই স্পট ভাবে জানিয়ে দিয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

আজ মোট চারটি জায়গা থেকে বিজেপির মিছিল বের হয়ে নবান্নে যাওয়ার কথা রয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় চার জায়গা থেকে নবান্নের উদ্দেশ্যে মিছিল শুরু হবে। দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বে একটি মিছিল হবে বিজেপির রাজ্য দপ্তর থেকে। হেস্টিংসে ফ্লাই ওভারের নিচ থেকে কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়, মুকুল রায়ের নেতৃত্বে একটি মিছিল হবে। হাওড়া ময়দান থেকে রওনা দেওয়া মিছিলের নেতৃত্ব দেবেন যুব মোর্চার সর্বভারতীয় সভাপতি তেজস্বী সূর্য। আর রাজ্য নেতা সায়ন্তন বসু-সহ অন্যরা সাঁতরাগাছি থেকে একটি মিছিলের নেতৃত্ব দেবেন। এইগুলি ছাড়াও ছোট মিছিল পুলিশের চোখ এড়িয়ে হতে পারে বলে খবর। ২০২১-এর নির্বাচনী যুদ্ধের দামামা বাজাতেই বিজেপির এই মিছিল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

নবান্ন বন্ধ তাই নবান্ন অভিযান কতটা স্বার্থ হবে তাই নিয়ে দ্বন্দে রয়েছে বিজেপি। কারণ এতো দিনের পরিকল্পনা করা প্রস্তুতিতে নবান্ন বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জল ঢেলে দিয়েছেন বলেই অনেকে মনে করছেন। তবে এই প্রসঙ্গে বুধবার বিজেপি নেতৃত্ব জানিয়েছে যতই বন্ধ থাকুক নবান্ন তাতে তাঁদের কিছু যায় আসে না। মিছিলের তীব্রতা কিছুতেই কমবে না। বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি সৌমিত্র খাঁ বলেছেন, “আমাদের অভিযান হচ্ছে, হবে। এ নিয়ে কোনও প্রশ্ন নেই।” দিলীপ ঘোষে নবান্ন বন্ধ থাকা নিয়ে কটাক্ষ করে বলেছেন, “লক্ষ লক্ষ মানুষের মুখোমুখি হতে পারবেন না বলেই ভয় পেয়ে দপ্তর বন্ধ করে পালিয়ে যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী এবং তাঁর কর্মচারীরা। বিজেপির আন্দোলন বলেই স্যানিটাইজারের যুক্তি খাড়া করতে হচ্ছে। নবান্ন বন্ধ থাকলেও কিছু এসে যায় না।”

প্রসঙ্গত, স্যানিটাইজ করার জন্য বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার নবান্নে সমস্ত কর্মীদের না আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে নবান্নে থাকবেন মুখ্যমন্ত্রী। বলতে গেলে ফাঁকা নবান্ন অভিযানে যাচ্ছে বিজেপির মিছিল। ফাঁকা নবান্নে যেতে যাতে কর্মীদের মধ্যে যাতে উতসাহ কম না হয় সেই কারণে বিজেপির বক্তব্য সরকার ভয় পেয়েছে তাই নবান্ন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তবে ফাঁকা নবান্ন অভিযান কতটা সফল করতে পারবে সেটাই দেখার। অন্যদিকে যাতে কোনও সমস্যা দেখা না দেই সেই কারণে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, “প্রশাসন প্রশাসনের ভূমিকা পালন করবে।” গণ্ডগোল এড়াতে থাকবে পুলিশ বাহিনী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here