‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বীরভূমের মেয়ে’ এই স্লোগান দিয়ে ফের মহিলা প্রার্থীর নাম ঘোষণা অনুব্রতর

0

কৌশিক সালুই বীরভূম: রামপুরহাটের পর এবার সাঁইথিয়ায় ফের প্রার্থী ঘোষনা অনুব্রতর। তৃনমূলের বুথ ভিত্তিক কর্মীসভায় এবার সাঁইথিয়া বিধানসভার প্রার্থী হিসাবে নীলাবতী সাহার নাম ঘোষনা করলেন অনুব্রত মণ্ডল। ফলে ফের প্রশ্ন উঠেছে দলনেত্রীর ঘোষনার আগেই অনুব্রত প্রার্থী ঘোষনা করা নিয়ে। যদিও অনুব্রত সাফাই, দলনেত্রী যা ঠিক করবেন সেটাই ফাইনাল।

কিন্তু দলের নিয়ম অনুসারে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং প্রার্থী ঘোষনা করেন। কিন্তু তার আগেই অনুব্রত প্রার্থী ঘোষনা করা নিয়ে ফের প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। কারণ চার দিন আগেই রাজ্যে প্রথম আগামী বিধানসভার জন্য প্রার্থী নাম ঘোষনা করে দেয় অনুব্রত। বুধবার সাঁইথিয়া ব্লকের বুথ ভিত্তিক কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় সাঁইথিয়া হাই স্কুলে মাঠে। ফুলুর, হরিসডা, দেরিযা পুর অঞ্চলের কর্মী দের নিয়ে এদিন মিটিং করেন অনুব্রত। এদিন শুরু থেকেই অনুব্রত মণ্ডল মহিলাকর্মীদের কাছে, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বীরভূমের মেয়ে’ এই সেন্টিমেন্ট কে কাজে লাগাতে তৎপর ছিলেন। তিনি কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বীরভূমের মেয়ে। ওর মামার বাড়ি এখানে। বাপের বাড়ি ও এখানে। ও আমাদের বাড়ি মেয়ে, ঘরের মেয়ে, জেলার মেয়ে। তাঁর সন্মান রাখবো না।” দলের মহিলা কর্মীরাও স্বতঃস্ফূর্ত ভাবেই উত্তর দিযেছেন, “দিদির জন্য আবার বাড়ি বাড়ি যাব।”

কর্মীদের সঙ্গে প্রশ্ন উত্তর পর্ব চলাকালীন হরিসডা অঞ্চলের মহিলা বুথ কর্মীর উদ্দেশ্যে অনুব্রত প্রশ্ন কি নাম? মাইক হাতে মহিলা কর্মী জানান, সুমিত্রা বিত্তার। স্বভাব সিদ্ধ ভঙ্গিতে অনুব্রত প্রশ্ন, বিধানসভায় ভোট বারবে? বাড়ি বাড়ি যাবেন? দিদির ভোট চাইবেন? মহিলা বুথ কর্মী উত্তর দেন বাড়ি বাড়ি যেতে শুরু করেছি। এরপরেই আচমকা মঞ্চে পাশে বসে থাকা বিধায়ক নীলাবতী সাহার নাম উল্লেখ করেন অনুব্রত। তিনি বলেন, “এই ভোটটা তো দিদির ভোট। নীলাবতী দাঁড়াবে। দিদি নীলাবতীকে দাঁড় করাবে বোধহয়। তার জন্য ভোট করতে হবে। করবেন তো? দিদির ভোট করতে হবে।” তৎক্ষণাৎ উত্তর আসে “অবশ্যই করব।” মহিলা কর্মীর উত্তর শুনে আনন্দিত কেষ্ট বলে উঠলেন, “আচ্ছা আমি আপনার বাড়ি ঘুরে আসব। চা খেয়ে আসব কথা দিলাম।”

এদিন ও বর্তমান বিধায়ককে পাশে বসিয়ে ফের প্রার্থী হিসেবে তার নাম ঘোষনার পর কর্মী দের মধ্যে থেকেই গুঞ্জন উঠতে শুরু করেছে। কর্মী সভায় উপস্থিত এক নেতা বলেন, তৃণমূল সুপ্রিমোর ঘোষনার আগেই রামপুরহাট বিধানসভায় প্রার্থীর নাম ঘোষনা করেছে কেষ্টদা। তার পরে আবার আজ নীলাবতী সাহার নাম করলেন। কি হবে কি জানি। কারন তৃণমূল কংগ্রেসের দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই যে কোন নির্বাচনে প্রার্থী ঘোষনা করেন। সেখানে দলের হাইকম্যানড কে উপেক্ষা করে অনুব্রত প্রার্থী নাম ঘোষনা করা নিয়ে দলের অন্দরেই গুঞ্জন শুরু হয়েছে।

গত শুক্রবারই রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী তথা রামপুরহাট বিধায়ক আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা করেন অনুব্রত। তা নিয়ে দলের অন্দরে চরম বিতর্ক শুরু হয়। চার দিনের মাথায় ফের বেলাগাম হন অনুব্রত। প্রার্থীর নাম ঘোষনা করে কেন বার বার নিযম দলের নিয়ম ভাঙছেন? এই প্রশ্নের উত্তরে অনুব্রত মণ্ডল বলেন, “আমি প্রার্থীর নাম ঘোষনা করি নি। বলেছি দিদি দাঁড় করাবে। কারন ও রানিং এমএলএ। ভালো কাজ করছে। যোগ্য প্রার্থী, মানুষ চাইছে। যদিও সাঁইথিয়া বর্তমান বিধায়ক নীলাবতী সাহা অবশ্য এই বিষয়ে যথেষ্ট সংযমী। তিনি বলেন, “দল যা সিদ্ধান্ত নেবে সেটাই শেষ কথা। আমার আলাদা করে কিছু বলার নেই।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here